ঢাকা ১০:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

৪৯ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী জনপ্রিয়তার শীর্ষে কামাল দেওয়ান 

Reporter Name
  • Update Time : ০৫:৪৬:০১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ মে ২০২৩
  • / ৭৩৩ Time View

জাহাঙ্গীর আকন্দ: দেশের সর্ববৃহৎ সিটি কর্পোরেশন গাজীপুরে আসন্ন নির্বাচন কে ঘিরে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা নজর কেড়েছে দেশবাসীর। চারপাশে বইছে নির্বাচনী হওয়া। নির্বাচন কে সামনে রেখে  প্রচার- প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা।

এরই ধারাবাহিকতায় ৪৯ নং ওয়ার্ডের সর্ব মহলে এখন চর্চা হচ্ছে কে হতে চলেছেন তাদের নতুন জনপ্রতিনিধি?

ওয়ার্ড বাসী বলছেন, শোষণ শাসনের কাউন্সিলর চান না তারা, চান এরশাদনগর বাসীর কাছের মানুষ। যে এলাকাবাসীর সকল নাগরিক সমস্যা দূর করে উন্নত ও আধুনিক ওয়ার্ড উপহার দেওয়ার জন্য করবে অক্লান্ত পরিশ্রম। এক্ষেত্রে এরশাদনগর এলাকার সকল স্তরের মানুষের মুখে বারে বারে উঠে আসছে একটি নাম যাকে এরশাদ নগরের সকল শ্রেনীর মানুষ ভালোবাসে তিনি হলেন আলহাজ্ব কামাল দেওয়ান।

কামাল দেওয়ান আসন্ন গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৪৯ নং ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে এসি প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচনে একই ওয়ার্ড থেকে ১২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও কামাল দেওয়ান তার ভালোবাসা ও বিপদকালীন সময়ে সাধারণ জনগনের পাশে থেকে ওয়ার্ড বাসীর আস্থার আসনে রয়েছে। কর্ম দক্ষতার কারণে এলাকা জুরে কামাল দেওয়ানের ব্যাপক জনসমর্থন রয়েছে। এই নির্বাচনে ব্যাপক জনসমর্থন কামাল দেওয়ান কে নির্বাচিত করতে ভোট ব্যাংক হিসেবে সংরক্ষিত আছে বলে দাবি এলাকাবাসীর।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২৫ মে গাজীপুরের ভোট গ্রহন করবে ইসি। এরপর রাজশাহী, বরিশাল, সিলেট এবং খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু হবে। এবার সব সিটি কর্পোরেশনের ভোট গ্রহণ হবে ইভিএমে।

৪৯ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন ব্লকের বাসিন্দা ও ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, আলহাজ্ব কামাল দেওয়ানের নানামুখী জনসেবা মূলক কর্মকান্ড বিগত দিনে ওয়ার্ড বাসীর নজর কেড়েছে। কাউন্সিলর না হয়েও এই এরশাদনগর বাসীর পানির সমস্যা, জলাবদ্ধতা, ঘর নির্মাণ, এতিম অসহায় শিশুদের শিক্ষা, আর্থিক অনুদান প্রদান, খাদ্য বিতরণসহ যাবতীয় দায়িত্বভার গ্রহণ ও বিভিন্ন কার্যক্রম এরশাদ নগরবাসীর মনে জায়গা করে নিয়েছে। আমরা রিতিমতো কামাল দেওয়ানের কার্যক্রম নিয়ে গর্ববোধ করি। কামাল কাউন্সিলর না হয়েও জনসাধারণের সুখে, দুঃখে যেভাবে সহযোগী হয়ে পাশে দাঁড়ায় সাধারণ মানুষ উপলব্ধি করতে পারবে উনি কাউন্সিলর হলে কি পরিমাণ উন্নয়ন হতে পারে তা আমরা উপলব্ধি করি। আগামী নির্বাচনে কামাল দেওয়ানের বিকল্প নাই। তিনি অবশ্যই কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হবেন।

কাউন্সিলর প্রার্থী কামাল দেওয়ান বলেন, ‘আমি বঙ্গবন্ধু কণ্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন পুরনে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব জাহিদ আহসান রাসেল ভাইয়ের হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে প্রিয় নেতা আলহাজ্ব মামুন মন্ডলের দিক নির্দেশনায় সাধারণ মানুষের কল্যাণে কাজ করে আসছি। আমি শুধু কাউন্সিলর হতে নয় নগরবাসীর সেবক হয়ে সাধারণ মানুষের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে চাই। আমার মৃত্যুর পরেও এরশাদনগরবাসী যেন আমাকে মনে রাখে। আমি নামে নয় কর্মের মাধ্যমে গড়ে যেতে চাই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা। তাই এরশাদনগর এলাকাটিকে একটি আধুনিক এলাকা হিসেবে গড়ে তুলতে আপনাদের ভালোবাসা, দোয়া ও মুল্যবান ভোট প্রত্যাশা করছি। আমি আশা রাখি আসছে ২৫ মে আপনার এসি প্রতীকে আপনাদের মুল্যবান ভোট নিয়ে আপনাদের সেবা করার সুযোগ করে দিবেন। আমি আপনাদের সন্তান তাই আপনাদের পাশে থেকে আজীবন সকলের সেবা করে যেতে চাই।’

Please Share This Post in Your Social Media

৪৯ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী জনপ্রিয়তার শীর্ষে কামাল দেওয়ান 

Update Time : ০৫:৪৬:০১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ মে ২০২৩

জাহাঙ্গীর আকন্দ: দেশের সর্ববৃহৎ সিটি কর্পোরেশন গাজীপুরে আসন্ন নির্বাচন কে ঘিরে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা নজর কেড়েছে দেশবাসীর। চারপাশে বইছে নির্বাচনী হওয়া। নির্বাচন কে সামনে রেখে  প্রচার- প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা।

এরই ধারাবাহিকতায় ৪৯ নং ওয়ার্ডের সর্ব মহলে এখন চর্চা হচ্ছে কে হতে চলেছেন তাদের নতুন জনপ্রতিনিধি?

ওয়ার্ড বাসী বলছেন, শোষণ শাসনের কাউন্সিলর চান না তারা, চান এরশাদনগর বাসীর কাছের মানুষ। যে এলাকাবাসীর সকল নাগরিক সমস্যা দূর করে উন্নত ও আধুনিক ওয়ার্ড উপহার দেওয়ার জন্য করবে অক্লান্ত পরিশ্রম। এক্ষেত্রে এরশাদনগর এলাকার সকল স্তরের মানুষের মুখে বারে বারে উঠে আসছে একটি নাম যাকে এরশাদ নগরের সকল শ্রেনীর মানুষ ভালোবাসে তিনি হলেন আলহাজ্ব কামাল দেওয়ান।

কামাল দেওয়ান আসন্ন গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৪৯ নং ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে এসি প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচনে একই ওয়ার্ড থেকে ১২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও কামাল দেওয়ান তার ভালোবাসা ও বিপদকালীন সময়ে সাধারণ জনগনের পাশে থেকে ওয়ার্ড বাসীর আস্থার আসনে রয়েছে। কর্ম দক্ষতার কারণে এলাকা জুরে কামাল দেওয়ানের ব্যাপক জনসমর্থন রয়েছে। এই নির্বাচনে ব্যাপক জনসমর্থন কামাল দেওয়ান কে নির্বাচিত করতে ভোট ব্যাংক হিসেবে সংরক্ষিত আছে বলে দাবি এলাকাবাসীর।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২৫ মে গাজীপুরের ভোট গ্রহন করবে ইসি। এরপর রাজশাহী, বরিশাল, সিলেট এবং খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু হবে। এবার সব সিটি কর্পোরেশনের ভোট গ্রহণ হবে ইভিএমে।

৪৯ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন ব্লকের বাসিন্দা ও ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, আলহাজ্ব কামাল দেওয়ানের নানামুখী জনসেবা মূলক কর্মকান্ড বিগত দিনে ওয়ার্ড বাসীর নজর কেড়েছে। কাউন্সিলর না হয়েও এই এরশাদনগর বাসীর পানির সমস্যা, জলাবদ্ধতা, ঘর নির্মাণ, এতিম অসহায় শিশুদের শিক্ষা, আর্থিক অনুদান প্রদান, খাদ্য বিতরণসহ যাবতীয় দায়িত্বভার গ্রহণ ও বিভিন্ন কার্যক্রম এরশাদ নগরবাসীর মনে জায়গা করে নিয়েছে। আমরা রিতিমতো কামাল দেওয়ানের কার্যক্রম নিয়ে গর্ববোধ করি। কামাল কাউন্সিলর না হয়েও জনসাধারণের সুখে, দুঃখে যেভাবে সহযোগী হয়ে পাশে দাঁড়ায় সাধারণ মানুষ উপলব্ধি করতে পারবে উনি কাউন্সিলর হলে কি পরিমাণ উন্নয়ন হতে পারে তা আমরা উপলব্ধি করি। আগামী নির্বাচনে কামাল দেওয়ানের বিকল্প নাই। তিনি অবশ্যই কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হবেন।

কাউন্সিলর প্রার্থী কামাল দেওয়ান বলেন, ‘আমি বঙ্গবন্ধু কণ্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন পুরনে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব জাহিদ আহসান রাসেল ভাইয়ের হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে প্রিয় নেতা আলহাজ্ব মামুন মন্ডলের দিক নির্দেশনায় সাধারণ মানুষের কল্যাণে কাজ করে আসছি। আমি শুধু কাউন্সিলর হতে নয় নগরবাসীর সেবক হয়ে সাধারণ মানুষের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে চাই। আমার মৃত্যুর পরেও এরশাদনগরবাসী যেন আমাকে মনে রাখে। আমি নামে নয় কর্মের মাধ্যমে গড়ে যেতে চাই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা। তাই এরশাদনগর এলাকাটিকে একটি আধুনিক এলাকা হিসেবে গড়ে তুলতে আপনাদের ভালোবাসা, দোয়া ও মুল্যবান ভোট প্রত্যাশা করছি। আমি আশা রাখি আসছে ২৫ মে আপনার এসি প্রতীকে আপনাদের মুল্যবান ভোট নিয়ে আপনাদের সেবা করার সুযোগ করে দিবেন। আমি আপনাদের সন্তান তাই আপনাদের পাশে থেকে আজীবন সকলের সেবা করে যেতে চাই।’