ঢাকা ০৫:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্ত্রীকে পেটাতে পেটাতে প্রেমিকের বাড়িতে নিয়ে গেলেন স্বামী!

নওরোজ আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • Update Time : ০৯:০৭:০৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ জুন ২০২৩
  • / ১৩৫ Time View

পরকীয়া প্রেমের কারণে স্ত্রীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে। এমনকি স্ত্রীকে পেটাতে পেটাতে তিনি প্রেমিকের বাড়িতে নিয়ে যান।

শুক্রবার গভীর রাতে ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে।

স্থানীয় সূত্রের বরাতে ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, প্রতিবেশী এক ব্যক্তির সঙ্গে ওই গৃহবধূর পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। শুক্রবার রাতে প্রেমিকের সঙ্গে ফোনে কথা বলতে শোনেন তার স্বামী।

এরপর তাকে মারতে প্রতিবেশী ওই যুবকের বাড়িতে নিয়ে যান তার স্বামী। সেখানে গিয়েও স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিকের গায়েও হাত তোলেন তিনি। এক পর্যায়ে দুজনের মধ্যে মারামারি শুরু হয়। দুজনই আহত হয়ে থানায় শরণাপন্ন হন।

গৃহবধূর স্বামী ডালিম দাসের অভিযোগ, তার স্ত্রী ফোনে সুকুমার দাস নামে এক যুবকের সঙ্গে কথা বলছিলেন। এ নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে তার মনোমালিন্য হয়েছে।

স্থানীয়দের দাবি, ডালিম স্ত্রীকে মারধর করেন। তাকে টানতে টানতে সুকুমারের বাড়িতে নিয়ে যান। সে সময় ডালিমের হাতে ছিল একটি ক্রিকেট ব্যাট। সুকুমারের বাড়িতে যেতেই ডালিমের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। সুকুমারের চিৎকারে তার বাড়ির লোকজন এসে ডালিমকে ধরে মারধর শুরু করেন।

সুকুমার বর্ধমান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

গৃহবধূর অভিযোগ, তার স্বামী তাকে মেরে তাড়িয়ে দিয়েছে। যাকে ভালবাসি, তার সঙ্গেই এবার ঘর করতে চাই।

তিনি আরও বলেন, আমার স্বামী আমাকে কোনো দিনও ভালবাসেনি। সন্দেহ করত। মারধরও করত। শুক্রবার রাতে মারতে মারতে বাড়ি থেকে সুকুমারের বাড়িতে দিয়ে চলে এসেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, ওই গৃহবধূর স্বামী ডালিম পেশায় দিনমজুর। ১০ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। তাদের ৯ বছরের একটি কন্যাসন্তান রয়েছে।

আর একই এলাকার বাসিন্দা সুকুমারের স্ত্রী মারা গেছে দেড় বছর আগে। এক ছেলেকে নিয়ে বাড়িতে থাকেন সুকুমার। সুকুমারের সঙ্গে দীর্ঘ দিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক ওই নারীর।

Please Share This Post in Your Social Media

স্ত্রীকে পেটাতে পেটাতে প্রেমিকের বাড়িতে নিয়ে গেলেন স্বামী!

Update Time : ০৯:০৭:০৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ জুন ২০২৩

পরকীয়া প্রেমের কারণে স্ত্রীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে। এমনকি স্ত্রীকে পেটাতে পেটাতে তিনি প্রেমিকের বাড়িতে নিয়ে যান।

শুক্রবার গভীর রাতে ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে।

স্থানীয় সূত্রের বরাতে ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, প্রতিবেশী এক ব্যক্তির সঙ্গে ওই গৃহবধূর পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। শুক্রবার রাতে প্রেমিকের সঙ্গে ফোনে কথা বলতে শোনেন তার স্বামী।

এরপর তাকে মারতে প্রতিবেশী ওই যুবকের বাড়িতে নিয়ে যান তার স্বামী। সেখানে গিয়েও স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিকের গায়েও হাত তোলেন তিনি। এক পর্যায়ে দুজনের মধ্যে মারামারি শুরু হয়। দুজনই আহত হয়ে থানায় শরণাপন্ন হন।

গৃহবধূর স্বামী ডালিম দাসের অভিযোগ, তার স্ত্রী ফোনে সুকুমার দাস নামে এক যুবকের সঙ্গে কথা বলছিলেন। এ নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে তার মনোমালিন্য হয়েছে।

স্থানীয়দের দাবি, ডালিম স্ত্রীকে মারধর করেন। তাকে টানতে টানতে সুকুমারের বাড়িতে নিয়ে যান। সে সময় ডালিমের হাতে ছিল একটি ক্রিকেট ব্যাট। সুকুমারের বাড়িতে যেতেই ডালিমের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। সুকুমারের চিৎকারে তার বাড়ির লোকজন এসে ডালিমকে ধরে মারধর শুরু করেন।

সুকুমার বর্ধমান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

গৃহবধূর অভিযোগ, তার স্বামী তাকে মেরে তাড়িয়ে দিয়েছে। যাকে ভালবাসি, তার সঙ্গেই এবার ঘর করতে চাই।

তিনি আরও বলেন, আমার স্বামী আমাকে কোনো দিনও ভালবাসেনি। সন্দেহ করত। মারধরও করত। শুক্রবার রাতে মারতে মারতে বাড়ি থেকে সুকুমারের বাড়িতে দিয়ে চলে এসেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, ওই গৃহবধূর স্বামী ডালিম পেশায় দিনমজুর। ১০ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। তাদের ৯ বছরের একটি কন্যাসন্তান রয়েছে।

আর একই এলাকার বাসিন্দা সুকুমারের স্ত্রী মারা গেছে দেড় বছর আগে। এক ছেলেকে নিয়ে বাড়িতে থাকেন সুকুমার। সুকুমারের সঙ্গে দীর্ঘ দিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক ওই নারীর।