ঢাকা ১০:২৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ মে ২০২৩, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবীদের ফের হাতাহাতি-ভাঙচুর

Reporter Name
  • Update Time : ১০:০৩:৫৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ মে ২০২৩
  • / ২৫ Time View

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন ফকির ও সম্পাদক আব্দুন নূর দুলালের কক্ষের সামনে বিক্ষোভ-ভাঙচুর চালিয়েছে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা।

মঙ্গলবার (১৬ মে) দুপুর দেড়টার পর ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, হাতাহাতি ও ধাক্কাধাক্কির এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় সভাপতি-সম্পাদককে ভোটচোর বলে স্লোগান দিচ্ছিলেন তারা। তখন সম্পাদক আবদুন নূর দুলাল তার কক্ষেই ছিলেন। সে সময় আওয়ামীপন্থী আইনজীবীদের উপস্থিতি ছিল হাতেগোনা।

বিক্ষোভের একপর্যায়ে সম্পাদক দুলালের কক্ষের দরজা-জানালা ভাঙচুর করা হয়। তখন প্রায় এক ঘণ্টা ধরে চলে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, হাতাহাতি। এতে কয়েকজন আইনজীবী আহত হয়েছেন বলে দাবি উভয় পক্ষের। এ ঘটনায় আওয়ামী ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা পরস্পরকে দায়ী করছে।

পরে দুপুর আড়াইটার দিকে পুলিশ বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা নিচে নেমে ভবনের প্রবেশপথে অবস্থান নেন। তখন আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা সভাপতি-সম্পাদকের কক্ষের সামনে অবস্থান নিয়ে পাল্টা স্লোগান দিতে থাকেন। তারা বিএনপিপন্থীদের ব্যালট চোর বলে স্লোগান দেন।

হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় আওয়ামীপন্থী অন্তত পাঁচজন আইনজীবী আহত হয়েছেন বলে দাবি সম্পাদক আবদুন নূর দুলালের। অন্যদিকে বিএনপিপন্থী ছয়জন আইনজীবী আহত বলে দাবি বিএনপির আইন সম্পাদক ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব কায়সার কামালের।

ঘটনার পর আবদুন নূর দুলাল সাংবাদিকদের বলেন, সম্পাদকের কক্ষ ভাঙচুরের ঘটনায় মামলা করা হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের মতো ব্যবস্থা নেবে। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আইনজীবী আহত হয়েছেন।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচন ও ভোট নিয়ে ক’দিন পরপরই ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, হামলা-ভাঙচুরের ঘটনা ঘটছে। গত দুই মাসেরও কম সময়ে এ নিয়ে তিনবার ঘটল এ ঘটনা।

গত ১৫-১৬ মার্চ অনুষ্ঠিত বিতর্কিত নির্বাচন নিয়ে প্রায় প্রতিদিন আওয়ামী ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের পাল্টাপাল্টি মিছিল-মিটিং হচ্ছে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণের সমিতি ভবনে।

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ইফতার আয়োজনে ভাঙচুর, হাতাহাতি, ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। ইফতার আয়োজনের ব্যানার, চেয়ার, টেবিল ভাঙচুর করেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। এ ঘটনায় গত ৯ এপ্রিল সমিতির প্রশাসনিক কর্মকর্তা রবিউল হাসান শাহবাগ থানায় এ মামলা করেন। পরে ১০ এপ্রিল এ মামলায় হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন নেন বিএনপিপন্থী ২৪ আইনজীবী।

এরপর গত ৩ মে ফের দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, হাতাহাতি, ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এতে আহত হন আতাউর রহমান নামের এক বয়োজ্যেষ্ঠ আইনজীবী আহত হন। তিনি আওয়ামীপন্থী আইনজীবী হিসেবে পরিচিত।

 

Please Share This Post in Your Social Media

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবীদের ফের হাতাহাতি-ভাঙচুর

Update Time : ১০:০৩:৫৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ মে ২০২৩

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন ফকির ও সম্পাদক আব্দুন নূর দুলালের কক্ষের সামনে বিক্ষোভ-ভাঙচুর চালিয়েছে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা।

মঙ্গলবার (১৬ মে) দুপুর দেড়টার পর ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, হাতাহাতি ও ধাক্কাধাক্কির এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় সভাপতি-সম্পাদককে ভোটচোর বলে স্লোগান দিচ্ছিলেন তারা। তখন সম্পাদক আবদুন নূর দুলাল তার কক্ষেই ছিলেন। সে সময় আওয়ামীপন্থী আইনজীবীদের উপস্থিতি ছিল হাতেগোনা।

বিক্ষোভের একপর্যায়ে সম্পাদক দুলালের কক্ষের দরজা-জানালা ভাঙচুর করা হয়। তখন প্রায় এক ঘণ্টা ধরে চলে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, হাতাহাতি। এতে কয়েকজন আইনজীবী আহত হয়েছেন বলে দাবি উভয় পক্ষের। এ ঘটনায় আওয়ামী ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা পরস্পরকে দায়ী করছে।

পরে দুপুর আড়াইটার দিকে পুলিশ বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা নিচে নেমে ভবনের প্রবেশপথে অবস্থান নেন। তখন আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা সভাপতি-সম্পাদকের কক্ষের সামনে অবস্থান নিয়ে পাল্টা স্লোগান দিতে থাকেন। তারা বিএনপিপন্থীদের ব্যালট চোর বলে স্লোগান দেন।

হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় আওয়ামীপন্থী অন্তত পাঁচজন আইনজীবী আহত হয়েছেন বলে দাবি সম্পাদক আবদুন নূর দুলালের। অন্যদিকে বিএনপিপন্থী ছয়জন আইনজীবী আহত বলে দাবি বিএনপির আইন সম্পাদক ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব কায়সার কামালের।

ঘটনার পর আবদুন নূর দুলাল সাংবাদিকদের বলেন, সম্পাদকের কক্ষ ভাঙচুরের ঘটনায় মামলা করা হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের মতো ব্যবস্থা নেবে। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আইনজীবী আহত হয়েছেন।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচন ও ভোট নিয়ে ক’দিন পরপরই ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, হামলা-ভাঙচুরের ঘটনা ঘটছে। গত দুই মাসেরও কম সময়ে এ নিয়ে তিনবার ঘটল এ ঘটনা।

গত ১৫-১৬ মার্চ অনুষ্ঠিত বিতর্কিত নির্বাচন নিয়ে প্রায় প্রতিদিন আওয়ামী ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের পাল্টাপাল্টি মিছিল-মিটিং হচ্ছে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণের সমিতি ভবনে।

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ইফতার আয়োজনে ভাঙচুর, হাতাহাতি, ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। ইফতার আয়োজনের ব্যানার, চেয়ার, টেবিল ভাঙচুর করেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। এ ঘটনায় গত ৯ এপ্রিল সমিতির প্রশাসনিক কর্মকর্তা রবিউল হাসান শাহবাগ থানায় এ মামলা করেন। পরে ১০ এপ্রিল এ মামলায় হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন নেন বিএনপিপন্থী ২৪ আইনজীবী।

এরপর গত ৩ মে ফের দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, হাতাহাতি, ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এতে আহত হন আতাউর রহমান নামের এক বয়োজ্যেষ্ঠ আইনজীবী আহত হন। তিনি আওয়ামীপন্থী আইনজীবী হিসেবে পরিচিত।