ঢাকা ০৪:৩৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৪ জুন ২০২৩, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সাতক্ষীরায় ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে শিক্ষক গ্রেপ্তার

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি
  • Update Time : ০৯:৪৬:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ মে ২০২৩
  • / ২৬ Time View

সংগৃহীত

সাতক্ষীরা সদরের তালতলা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি ইংরেজি শিক্ষক এস.এম মোর্তজা আলম লিটনকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আজ বুধবার ভোররাতে তাকে গ্রেপ্তারের পর দুপুরে তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তার শিক্ষক এস.এম মোর্তেজা আলম লিটন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার মাগুরা কর্মকার পাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

এরআগে গতকাল মঙ্গলবার সাতক্ষীরা সদর থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ জানায় ওই ভুক্তভোগী ছাত্রী। এ ঘটনা অভিভাবকদের মধ্যে জানাজানি হলে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

সাতক্ষীরা সদর থানায় এজাহারে ভুক্তভোগী বলেন, গত দুই মাস ধরে আমি এস.এম মোর্তেজা আলম লিটন স্যারের কাছে প্রাইভেট পড়ছি। গত সোমবার বিকেলে ওই শিক্ষকের বাসায় ১২-১৩ জন সহপাঠী প্রাইভেট পড়তে যাই। প্রাইভেট পড়া শেষ হলে স্যার আমাকে বসতে বলেন। ততক্ষণে আমার সহপাঠীরা চলে যায়। একপর্যায়ে শিক্ষক আমাকে জাপটে ধরে আমার শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন। আমি তাকে বাধা দেই। তাতেও তাকে বিরত রাখতে না পেরে চিৎকার দেই। তখন তিনি আমার মুখ চেপে ধরেন এবং আমাকে হত্যার হুমকি দেন। একপর্যায়ে আমি সজোরে শিক্ষককে ধাক্কা দিয়ে বাসায় চলে আসি। বাড়িতে এসে আমি বিষয়টি আমার বাবা-মাকে জানাই। পরে আমি লিখিতভাবে সাতক্ষীরা সদর থানায় অভিযোগ করি।’

ভুক্তভোগীর বাবা বলেন, ‘আমরা মেয়েকে পিতৃতুল্য শিক্ষকদের কাছে পাঠাই শিক্ষাগ্রহণ করতে। অথচ লিটন স্যার যে আচরণ করেছেন, তা ক্ষমা করা যায় না। এর আগেও তিনি একাধিক ঘটনা ঘটিয়েছেন। আমি ওই লম্পট শিক্ষকের বিচার চাই।’

এ বিষয়ে তালতলা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম বলেন, আগামীকাল বৃহস্পতিবার ম্যানেজিং কমিটির মিটিং ডাকা হয়েছে। মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিতভাবে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়।

এ ব্যাপারে তালতলা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম বলেন, ঘটনাটি জানার পর ম্যানেজিং কমিটির জরুরি সভা ডাকা হয়েছে। অভিযুক্ত শিক্ষক এসএম মোর্তজা আলম লিটনের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাতক্ষীরা সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নজরুল ইসলাম বলেন, যৌন নিপীড়নের অভিযোগে ভুক্তভোগীর করা মামলায় সাতক্ষীরা সদরের তালতলা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক মোর্তজা আলম লিটনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা সদর থানায় যৌন নিপীড়নের অভিযোগে মামলা হয়েছে। গ্রেপ্তার হওয়া শিক্ষককে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, এস.এম মোর্তেজা আলম লিটনের বিরুদ্ধে ছাত্রী হয়রানির অভিযোগ বেশ পুরনো। ২০১২ ও ২০১৫ সালে ছাত্রী শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠে তার বিরুদ্ধে। তবে ম্যানেজিং কমিটির কাছে ক্ষমা চেয়ে সে যাত্রায় রেহাই পান তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

সাতক্ষীরায় ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে শিক্ষক গ্রেপ্তার

Update Time : ০৯:৪৬:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ মে ২০২৩

সাতক্ষীরা সদরের তালতলা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি ইংরেজি শিক্ষক এস.এম মোর্তজা আলম লিটনকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আজ বুধবার ভোররাতে তাকে গ্রেপ্তারের পর দুপুরে তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তার শিক্ষক এস.এম মোর্তেজা আলম লিটন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার মাগুরা কর্মকার পাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

এরআগে গতকাল মঙ্গলবার সাতক্ষীরা সদর থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ জানায় ওই ভুক্তভোগী ছাত্রী। এ ঘটনা অভিভাবকদের মধ্যে জানাজানি হলে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

সাতক্ষীরা সদর থানায় এজাহারে ভুক্তভোগী বলেন, গত দুই মাস ধরে আমি এস.এম মোর্তেজা আলম লিটন স্যারের কাছে প্রাইভেট পড়ছি। গত সোমবার বিকেলে ওই শিক্ষকের বাসায় ১২-১৩ জন সহপাঠী প্রাইভেট পড়তে যাই। প্রাইভেট পড়া শেষ হলে স্যার আমাকে বসতে বলেন। ততক্ষণে আমার সহপাঠীরা চলে যায়। একপর্যায়ে শিক্ষক আমাকে জাপটে ধরে আমার শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন। আমি তাকে বাধা দেই। তাতেও তাকে বিরত রাখতে না পেরে চিৎকার দেই। তখন তিনি আমার মুখ চেপে ধরেন এবং আমাকে হত্যার হুমকি দেন। একপর্যায়ে আমি সজোরে শিক্ষককে ধাক্কা দিয়ে বাসায় চলে আসি। বাড়িতে এসে আমি বিষয়টি আমার বাবা-মাকে জানাই। পরে আমি লিখিতভাবে সাতক্ষীরা সদর থানায় অভিযোগ করি।’

ভুক্তভোগীর বাবা বলেন, ‘আমরা মেয়েকে পিতৃতুল্য শিক্ষকদের কাছে পাঠাই শিক্ষাগ্রহণ করতে। অথচ লিটন স্যার যে আচরণ করেছেন, তা ক্ষমা করা যায় না। এর আগেও তিনি একাধিক ঘটনা ঘটিয়েছেন। আমি ওই লম্পট শিক্ষকের বিচার চাই।’

এ বিষয়ে তালতলা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম বলেন, আগামীকাল বৃহস্পতিবার ম্যানেজিং কমিটির মিটিং ডাকা হয়েছে। মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিতভাবে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়।

এ ব্যাপারে তালতলা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম বলেন, ঘটনাটি জানার পর ম্যানেজিং কমিটির জরুরি সভা ডাকা হয়েছে। অভিযুক্ত শিক্ষক এসএম মোর্তজা আলম লিটনের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাতক্ষীরা সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নজরুল ইসলাম বলেন, যৌন নিপীড়নের অভিযোগে ভুক্তভোগীর করা মামলায় সাতক্ষীরা সদরের তালতলা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক মোর্তজা আলম লিটনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা সদর থানায় যৌন নিপীড়নের অভিযোগে মামলা হয়েছে। গ্রেপ্তার হওয়া শিক্ষককে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, এস.এম মোর্তেজা আলম লিটনের বিরুদ্ধে ছাত্রী হয়রানির অভিযোগ বেশ পুরনো। ২০১২ ও ২০১৫ সালে ছাত্রী শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠে তার বিরুদ্ধে। তবে ম্যানেজিং কমিটির কাছে ক্ষমা চেয়ে সে যাত্রায় রেহাই পান তিনি।