ঢাকা ০১:৩৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
বিমানবন্দর-টঙ্গী থেকে ধারালো অস্ত্রসহ ৮ ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার কিশোরগঞ্জে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্কুলের উন্নয়ন খাতের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ সাংবাদিককে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা ও গ্র্যাজুয়েট হতে হবে বেনজীরের আরও ১১৩ দলিলের সম্পদ ও গুলশানের ৪টি ফ্ল্যাট জব্দের আদেশ সুজানগরে গৃহবধূকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে কাউকে ছাড় দেব না : ইসি রাশেদা ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে একটি বাড়ি থেকে ১২ কোটি রুপির স্বর্ণ জব্দ সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণের আহ্বান প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রীর ঝালকাঠিতে রেমালের প্রভাবে নদীর পানি বেড়েছে ২১৭ নেতাকে বহিষ্কার করল বিএনপি

রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে মোহামেডানকে হারাল আবাহনী

Reporter Name
  • Update Time : ০৩:৫৩:৪৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ মে ২০২৩
  • / ২০৭ Time View

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে ম্যাচের আগে দলের বড়সড় দুই তারকা সাকিব আল হাসান এবং মেহেদী হাসান মিরাজকে হারিয়েছে মোহামেডান। তবে মোহামেডান অধিনায়ক ইমরুল কায়েস ম্যাচের আগে ছিলেন দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, যেকোনো মূল্যে ম্যাচ জিততে চেয়েছিল তারা। মাঠেও দেখা গেল সেই দৃঢ়তার প্রমাণ। কিন্তু তাতেও আবাহনীর সঙ্গে পেরে ওঠা সম্ভব হলো না।
সোমবার (১ এপ্রিল) ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে সুপার লিগের ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনী-মোহামেডান। ঘরোয়া ক্রিকেটের দুই বড় দলের ম্যাচও হয়েছে তীব্র প্রতিদ্বদ্বিতামূলক। দুলই লড়েছে শেষ ওভার পর্যন্ত। আর তাতে শেষ পর্যন্ত জয়ের দেখা পেয়েছে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের আবাহনী দল।

মিরপুর শের-ই বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আজ মোহামেডানকে ৮ রানে হারিয়েছে আবাহনী। শুরুতে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ২৫৮ রান করে আবাহনী। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শেষ পর্যন্ত ২৫০ রানে থামে মোহামেডান।
মিরপুরের উইকেটে টস হেরে ব্যাট করতে নামে আবাহনী। তবে অধিনায়কের সিদ্ধান্তের মান রাখতে পারেননি টপ অর্ডার ব্যাটাররা। এনামুল হক, নাঈম শেখ এবং মাহমুদুল হাসান ফিরেছেন দলীয় ৪৩ রানের মধ্যে।

এরপর দলের হাল ধরেন জাকের আলী অনিক এবং আফিফ হোসেন। দুজনে মিলে গড়েন ৭৩ রানের জুটি। ৪০ বলে ৩৬ রান করে আফিফ ফেরেন শুভাগতর বলে ক্যাচ হয়ে। অনিক আউট হন ৬৩ রান করে। শেষদিকে মোসাদ্দেকের ৬৩ এবং পাকিস্তানি অলরাউন্ডার খুশদিল শাহের ২৯ রানে ২৫৮ রানের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ পায় আবাহনী।

মাঝারি লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস এবং সৌম্য সরকার ফিরে যান শুরুতেই। রান করতে পারেননি বিদেশি কামিন্দু মেন্ডিসও। ১২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে মোহামেডান। পরবর্তীতে দলের হাল ধরেন আরিফুল ইসলাম এবং মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন।
আরিফুল ৫৯ বলে ফেরেন ৩০ রান করে। পঞ্চম উইকেটে অঙ্কনকে নিয়ে ৮৭ রানের জুটি গড়েন মাহমদউল্লাহ। ১১৩ বলে ৩ ছক্কা ও ৬ চারে ৮৮ রান করে অঙ্কন যখন ফিরলেন তখন দলের প্রয়োজন ৮৭ রান। দুই ওভার পরে ফিরলেন মাহমুদউল্লাহও।

শেষদিকে আরিফুল হোক এবং শুভাগত হোম প্রাণপণ চেষ্টা করলেও ম্যাচ জিতিয়ে উঠতে পারেননি তারা। আরিফুল ১৪ বলে করেছেন ২৬ রান, শুভাগতর ব্যাট থেকে এসেছে ২১ রান।

Please Share This Post in Your Social Media

রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে মোহামেডানকে হারাল আবাহনী

Update Time : ০৩:৫৩:৪৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ মে ২০২৩

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে ম্যাচের আগে দলের বড়সড় দুই তারকা সাকিব আল হাসান এবং মেহেদী হাসান মিরাজকে হারিয়েছে মোহামেডান। তবে মোহামেডান অধিনায়ক ইমরুল কায়েস ম্যাচের আগে ছিলেন দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, যেকোনো মূল্যে ম্যাচ জিততে চেয়েছিল তারা। মাঠেও দেখা গেল সেই দৃঢ়তার প্রমাণ। কিন্তু তাতেও আবাহনীর সঙ্গে পেরে ওঠা সম্ভব হলো না।
সোমবার (১ এপ্রিল) ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে সুপার লিগের ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনী-মোহামেডান। ঘরোয়া ক্রিকেটের দুই বড় দলের ম্যাচও হয়েছে তীব্র প্রতিদ্বদ্বিতামূলক। দুলই লড়েছে শেষ ওভার পর্যন্ত। আর তাতে শেষ পর্যন্ত জয়ের দেখা পেয়েছে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের আবাহনী দল।

মিরপুর শের-ই বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আজ মোহামেডানকে ৮ রানে হারিয়েছে আবাহনী। শুরুতে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ২৫৮ রান করে আবাহনী। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শেষ পর্যন্ত ২৫০ রানে থামে মোহামেডান।
মিরপুরের উইকেটে টস হেরে ব্যাট করতে নামে আবাহনী। তবে অধিনায়কের সিদ্ধান্তের মান রাখতে পারেননি টপ অর্ডার ব্যাটাররা। এনামুল হক, নাঈম শেখ এবং মাহমুদুল হাসান ফিরেছেন দলীয় ৪৩ রানের মধ্যে।

এরপর দলের হাল ধরেন জাকের আলী অনিক এবং আফিফ হোসেন। দুজনে মিলে গড়েন ৭৩ রানের জুটি। ৪০ বলে ৩৬ রান করে আফিফ ফেরেন শুভাগতর বলে ক্যাচ হয়ে। অনিক আউট হন ৬৩ রান করে। শেষদিকে মোসাদ্দেকের ৬৩ এবং পাকিস্তানি অলরাউন্ডার খুশদিল শাহের ২৯ রানে ২৫৮ রানের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ পায় আবাহনী।

মাঝারি লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস এবং সৌম্য সরকার ফিরে যান শুরুতেই। রান করতে পারেননি বিদেশি কামিন্দু মেন্ডিসও। ১২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে মোহামেডান। পরবর্তীতে দলের হাল ধরেন আরিফুল ইসলাম এবং মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন।
আরিফুল ৫৯ বলে ফেরেন ৩০ রান করে। পঞ্চম উইকেটে অঙ্কনকে নিয়ে ৮৭ রানের জুটি গড়েন মাহমদউল্লাহ। ১১৩ বলে ৩ ছক্কা ও ৬ চারে ৮৮ রান করে অঙ্কন যখন ফিরলেন তখন দলের প্রয়োজন ৮৭ রান। দুই ওভার পরে ফিরলেন মাহমুদউল্লাহও।

শেষদিকে আরিফুল হোক এবং শুভাগত হোম প্রাণপণ চেষ্টা করলেও ম্যাচ জিতিয়ে উঠতে পারেননি তারা। আরিফুল ১৪ বলে করেছেন ২৬ রান, শুভাগতর ব্যাট থেকে এসেছে ২১ রান।