ঢাকা ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কিশোরগঞ্জে ২০ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল প্রেস কাউন্সিল সাংবাদিকতার মান উন্নয়নে কাজ করছেঃ সিলেটে বিচারপতি মো. নিজামুল হক গাইবান্ধায় তৈরি হচ্ছে পরিবেশবান্ধব কংক্রিটের ইট গাইবান্ধায় মামলা প্রত্যাহার ও পুলিশি হয়রানির প্রতিবাদে মানববন্ধন সিলেট প্রেসক্লাব নির্বাচনে সভাপতি ইকরামুল কবির, সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম ঝালকাঠিতে ট্রাকচাপায় ১৪ জন নিহতের ঘটনায় চালক-হেলপার কারাগারে সূর্যের প্রখরতা আর ভ্যাপসা গরমে জনজীবন অতিষ্ঠ বিএনপির লক্ষ্য একাত্তর মুছে সাত চল্লিশে ফিরে যাওয়া: শাহরিয়ার কবির  হানিমুনে যাওয়া হলো না নবদম্পতির, একই পরিবারের ৬ জন নিহত ঝালকাঠিতে ট্রাকচাপায় নিহত ১৪ জনের মরদেহ হস্তান্তর

রোগ প্রতিরোধ করতে না পারলে সেবা বাড়িয়ে লাভ নেই: স্বাস্থ্য সচিব

Reporter Name
  • Update Time : ০২:৩৮:২৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৯৬ Time View

রোগ প্রতিরোধ করতে না পারলে যতো সেবাই বাড়ানো হোক যথেষ্ট হবে না বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সচিব ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার।

তিনি বলেন, আমরা গর্ব করে বলি, স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছি, হাসপাতালগুলোতে সেবা বাড়াচ্ছি। কিন্তু যতো সেবাই বাড়ানো হোক যথেষ্ট হবে না, যদি আমরা প্রিভেনশনকে গুরুত্ব না দেই।

শনিবার (২৯ এপ্রিল) রাজধানীর হোটেল শেরাটনে নেগলেক্ট ট্রপিক্যাল ডিজিস (এনটিডি) দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্য সচিব আনোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের স্বাস্থ্য সেবায় বর্তমান যে ফ্যাসিলিটি আছে, সেটা দিয়েই প্রিভেনশনে আমরা আরও বেশি কাজ করতে পারি। ছোটখাটো যেকোনো সমস্যায় চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া খুবই জরুরি। অনেকসময় ছোটখাটো রোগ থেকেই বিভিন্ন বড় সমস্যা দেখা দেয়। এজন্য সচেতনতাটা খুবই জরুরি।
তিনি আরও বলেন, অসংখ্য মানুষ এখন অর্থের চাপের কারণে হাসপাতালে যায় না। প্রেশার নিয়ে ঘুমিয়ে আছে, ডায়াবেটিস নিয়ে চলাফেরা করছে। যখন সিভিয়ার পর্যায়ে পৌঁছে, তখন হাসপাতালে ছুটে যায়। কিন্তু তখন আর তাকে বাঁচানো সম্ভব হয় না।

এনটিডি রোগ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য সচিব বলেন, এনটিডি নিয়ে ১৪৯টি দেশ সমস্যায় আছে। আমাদের রোগের প্রবণতা বেশি। ফাইলেরিয়া ও কালাজ্বরের প্রকোপ হরহামেশাই দেখা যায়। আমরা যদি এখানে বিনিয়োগ করি এবং সচেতনতা বাড়াতে পারি, তাহলে অসংখ্য ডিজিজ প্রিভেনশন করতে পারবো।

চিকিৎসায় খরচ প্রসঙ্গে সচিব বলেন, স্বাস্থ্য খাতে প্রতি ডলার খরচ করলে ২৫ ডলার রিটার্ন পাওয়া যায়। অর্থাৎ প্রিভেনশনে যদি খরচ করা হয়, মানুষ অসুস্থ হবে না। চিকিৎসার পেছনে খরচ হবে না। এতে ২৫ ডলার মূল্যের লাভ হবে। আমরা আমাদের বিভিন্ন ডিজিজ ম্যানেজমেন্টে যে পরিমাণ ব্যয় করি, সেটাকে বাড়িয়ে যদি আমরা ইউনিভার্সাল হেলথ কভারেজে আনতে পারি তাহলে অনেকটাই এগিয়ে যাবো।
এ সময় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম বলেন, এনটিডি প্রতিরোধে ২০৩০ সালের মধ্যে যেসব টার্গেট আছে, সেগুলো অর্জন করতে হলে আমাদের সমন্বিত উদ্যোগ ও কাজ করা প্রয়োজন। তাহলেই কাজটি সফল হবে এবং আমরা আমরাদের টার্গেট পূরণ করতে পারব।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডা. রাশেদা সুলতানা। এছাড়াও আরও ছিলেন- স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) সভাপতি ডা. জামাল উদ্দিন চৌধুরী, মহাসচিব ডা. কামরুল হাসান মিলনসহ আরও অনেকে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লাইন ডাইরেক্টর (সিডিসি) ও রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. নাজমুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার লাইন ডাইরেক্টর অধ্যাপক ড. রোবেদ আমিন।

Please Share This Post in Your Social Media

রোগ প্রতিরোধ করতে না পারলে সেবা বাড়িয়ে লাভ নেই: স্বাস্থ্য সচিব

Update Time : ০২:৩৮:২৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৩

রোগ প্রতিরোধ করতে না পারলে যতো সেবাই বাড়ানো হোক যথেষ্ট হবে না বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সচিব ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার।

তিনি বলেন, আমরা গর্ব করে বলি, স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছি, হাসপাতালগুলোতে সেবা বাড়াচ্ছি। কিন্তু যতো সেবাই বাড়ানো হোক যথেষ্ট হবে না, যদি আমরা প্রিভেনশনকে গুরুত্ব না দেই।

শনিবার (২৯ এপ্রিল) রাজধানীর হোটেল শেরাটনে নেগলেক্ট ট্রপিক্যাল ডিজিস (এনটিডি) দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্য সচিব আনোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের স্বাস্থ্য সেবায় বর্তমান যে ফ্যাসিলিটি আছে, সেটা দিয়েই প্রিভেনশনে আমরা আরও বেশি কাজ করতে পারি। ছোটখাটো যেকোনো সমস্যায় চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া খুবই জরুরি। অনেকসময় ছোটখাটো রোগ থেকেই বিভিন্ন বড় সমস্যা দেখা দেয়। এজন্য সচেতনতাটা খুবই জরুরি।
তিনি আরও বলেন, অসংখ্য মানুষ এখন অর্থের চাপের কারণে হাসপাতালে যায় না। প্রেশার নিয়ে ঘুমিয়ে আছে, ডায়াবেটিস নিয়ে চলাফেরা করছে। যখন সিভিয়ার পর্যায়ে পৌঁছে, তখন হাসপাতালে ছুটে যায়। কিন্তু তখন আর তাকে বাঁচানো সম্ভব হয় না।

এনটিডি রোগ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য সচিব বলেন, এনটিডি নিয়ে ১৪৯টি দেশ সমস্যায় আছে। আমাদের রোগের প্রবণতা বেশি। ফাইলেরিয়া ও কালাজ্বরের প্রকোপ হরহামেশাই দেখা যায়। আমরা যদি এখানে বিনিয়োগ করি এবং সচেতনতা বাড়াতে পারি, তাহলে অসংখ্য ডিজিজ প্রিভেনশন করতে পারবো।

চিকিৎসায় খরচ প্রসঙ্গে সচিব বলেন, স্বাস্থ্য খাতে প্রতি ডলার খরচ করলে ২৫ ডলার রিটার্ন পাওয়া যায়। অর্থাৎ প্রিভেনশনে যদি খরচ করা হয়, মানুষ অসুস্থ হবে না। চিকিৎসার পেছনে খরচ হবে না। এতে ২৫ ডলার মূল্যের লাভ হবে। আমরা আমাদের বিভিন্ন ডিজিজ ম্যানেজমেন্টে যে পরিমাণ ব্যয় করি, সেটাকে বাড়িয়ে যদি আমরা ইউনিভার্সাল হেলথ কভারেজে আনতে পারি তাহলে অনেকটাই এগিয়ে যাবো।
এ সময় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম বলেন, এনটিডি প্রতিরোধে ২০৩০ সালের মধ্যে যেসব টার্গেট আছে, সেগুলো অর্জন করতে হলে আমাদের সমন্বিত উদ্যোগ ও কাজ করা প্রয়োজন। তাহলেই কাজটি সফল হবে এবং আমরা আমরাদের টার্গেট পূরণ করতে পারব।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডা. রাশেদা সুলতানা। এছাড়াও আরও ছিলেন- স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) সভাপতি ডা. জামাল উদ্দিন চৌধুরী, মহাসচিব ডা. কামরুল হাসান মিলনসহ আরও অনেকে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লাইন ডাইরেক্টর (সিডিসি) ও রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. নাজমুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার লাইন ডাইরেক্টর অধ্যাপক ড. রোবেদ আমিন।