ঢাকা ০৫:৫৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সিলেট বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে মৃত্যু

রায়হান হত্যা: আকবরকে বাঁচানোর চেষ্টা করায় এএসপি নির্মলেন্দুর শাস্তি

মো.মুহিবুর রহমান,সিলেট
  • Update Time : ০৬:৩২:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১ জুন ২০২৩
  • / ৪৪৪ Time View

সিলেট মহানগর পুলিশের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে নির্যাতনে রায়হান আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় তৎকালীন পুলিশ কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার (এএসপি) নির্মলেন্দু চক্রবর্তীকে শাস্তি দিয়েছে সরকার। তিনি সিলেটে কর্মরত অবস্থায় রায়হান হত্যায় অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে গ্রেপ্তারে আইনানুগ উদ্যোগ না নেওয়ায় ‘তিরস্কার’ নামক লঘুদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন।

সম্প্রতি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। নির্মলেন্দু চক্রবর্তী বর্তমানে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ‘হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) নির্মলেন্দু চক্রবর্তী ও ইতোপূর্বে সিলেট মহানগর পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার হিসেবে কর্মকালে গত ১১/১০/২০২০ তারিখ জনৈক রায়হান আহমেদকে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির এসআই (নি:) আকবর হোসেন ভূঁইয়াসহ অন্যান্য পুলিশ সদস্য কর্তৃক শারীরিকভাবে নির্যাতনের ফলে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

‘আপনার যথাযথ তদারকির অভাবে ভুল ধারায় সিলেট কোতোয়ালী মডেল থানায় ১২/১০/২০২০ তারিখ মামলা নং ২০ দঃ বি: ৩০২/৩৪ ধারায় এবং হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইন, ২০১৩ এর ১৫(১)/১৫(২) (১৫(৩) ধারায় মামলা রুজু হয়। আপনি অনুসন্ধান কমিটির সদস্য হিসেবে অনুসন্ধানকালে পুলিশ সদস্য দ্বারা শারীরিক নির্যাতনের কারণে রায়হান আহমেদের মৃত্যু ঘটে, যা ফৌজদারি অপরাধ হওয়া সত্ত্বেও তিনি এসআই (নি:) আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে গ্রেপ্তারে আইনানুগ উদ্যোগ গ্রহণ না করে শুধু বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে প্রতিবেদন দাখিল করাসহ এ অভিযোগে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা রুজু করে ১০/৩/২০২১ তারিখ অভিযোগনামা ও অভিযোগ বিবরণী জারি করা হয়।

এ প্রেক্ষিতে ১১/০৯/২০২১ তারিখে কারণ দর্শানোর জবাব প্রদান করে ব্যক্তিগত শুনানির আবেদন করেন এবং ১৫/১২/২০২১ তারিখ তার ব্যক্তিগত শুনানি গ্রহণ করা হয় বলেও এতে জানানো হয়। প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, ব্যক্তিগত শুনানিতে পক্ষদের প্রদত্ত বক্তব্য এবং প্রাসঙ্গিক সকল তথ্যাদি বিবেচনা করে আনিত অভিযোগ প্রমাণিত হলে গুরুদÐ আরোপের সম্ভাবনা থাকার অভিযোগগুলো তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য মৌলভীবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জিয়াউর রহমানকে এ বিভাগীয় মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়।
তদন্তকারী কর্মকর্তা কর্তৃক গত ২৩/১১/২০২২ তারিখে দাখিল করা তদন্ত প্রতিবেদনে নির্মলেন্দু চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ তদন্ত ও সাক্ষ্য প্রমাণে প্রমাণিত হয়েছে এবং তার বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ২০১৮ এর ৩(ক) বিধি মোতাবেক ‘অদক্ষতা’ এর প্রমাণিত অভিযোগে একই বিধিমালার বিধি ও এর উপবিধি ২(ক) মোতাবেক ‘তিরস্কার’ লঘুদণ্ড প্রদান করা হল।

Please Share This Post in Your Social Media

সিলেট বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে মৃত্যু

রায়হান হত্যা: আকবরকে বাঁচানোর চেষ্টা করায় এএসপি নির্মলেন্দুর শাস্তি

Update Time : ০৬:৩২:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১ জুন ২০২৩

সিলেট মহানগর পুলিশের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে নির্যাতনে রায়হান আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় তৎকালীন পুলিশ কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার (এএসপি) নির্মলেন্দু চক্রবর্তীকে শাস্তি দিয়েছে সরকার। তিনি সিলেটে কর্মরত অবস্থায় রায়হান হত্যায় অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে গ্রেপ্তারে আইনানুগ উদ্যোগ না নেওয়ায় ‘তিরস্কার’ নামক লঘুদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন।

সম্প্রতি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। নির্মলেন্দু চক্রবর্তী বর্তমানে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ‘হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) নির্মলেন্দু চক্রবর্তী ও ইতোপূর্বে সিলেট মহানগর পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার হিসেবে কর্মকালে গত ১১/১০/২০২০ তারিখ জনৈক রায়হান আহমেদকে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির এসআই (নি:) আকবর হোসেন ভূঁইয়াসহ অন্যান্য পুলিশ সদস্য কর্তৃক শারীরিকভাবে নির্যাতনের ফলে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

‘আপনার যথাযথ তদারকির অভাবে ভুল ধারায় সিলেট কোতোয়ালী মডেল থানায় ১২/১০/২০২০ তারিখ মামলা নং ২০ দঃ বি: ৩০২/৩৪ ধারায় এবং হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইন, ২০১৩ এর ১৫(১)/১৫(২) (১৫(৩) ধারায় মামলা রুজু হয়। আপনি অনুসন্ধান কমিটির সদস্য হিসেবে অনুসন্ধানকালে পুলিশ সদস্য দ্বারা শারীরিক নির্যাতনের কারণে রায়হান আহমেদের মৃত্যু ঘটে, যা ফৌজদারি অপরাধ হওয়া সত্ত্বেও তিনি এসআই (নি:) আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে গ্রেপ্তারে আইনানুগ উদ্যোগ গ্রহণ না করে শুধু বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে প্রতিবেদন দাখিল করাসহ এ অভিযোগে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা রুজু করে ১০/৩/২০২১ তারিখ অভিযোগনামা ও অভিযোগ বিবরণী জারি করা হয়।

এ প্রেক্ষিতে ১১/০৯/২০২১ তারিখে কারণ দর্শানোর জবাব প্রদান করে ব্যক্তিগত শুনানির আবেদন করেন এবং ১৫/১২/২০২১ তারিখ তার ব্যক্তিগত শুনানি গ্রহণ করা হয় বলেও এতে জানানো হয়। প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, ব্যক্তিগত শুনানিতে পক্ষদের প্রদত্ত বক্তব্য এবং প্রাসঙ্গিক সকল তথ্যাদি বিবেচনা করে আনিত অভিযোগ প্রমাণিত হলে গুরুদÐ আরোপের সম্ভাবনা থাকার অভিযোগগুলো তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য মৌলভীবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জিয়াউর রহমানকে এ বিভাগীয় মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়।
তদন্তকারী কর্মকর্তা কর্তৃক গত ২৩/১১/২০২২ তারিখে দাখিল করা তদন্ত প্রতিবেদনে নির্মলেন্দু চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ তদন্ত ও সাক্ষ্য প্রমাণে প্রমাণিত হয়েছে এবং তার বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ২০১৮ এর ৩(ক) বিধি মোতাবেক ‘অদক্ষতা’ এর প্রমাণিত অভিযোগে একই বিধিমালার বিধি ও এর উপবিধি ২(ক) মোতাবেক ‘তিরস্কার’ লঘুদণ্ড প্রদান করা হল।