ঢাকা ০২:৪৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির সংঘর্ষ, আটক ৩০

Reporter Name
  • Update Time : ১০:১১:০০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ মে ২০২৩
  • / ৭১ Time View

রাজবাড়ীতে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় বিএনপির অন্তত ৩০ জন নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (২০ মে) দুপুর ১২টার দিকে শহরের বকুলতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাজবাড়ীতে আগে থেকেই কর্মসূচি ঘোষণা দেয় জেলা বিএনপি। সকাল থেকেই পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে শহরের সজ্জনকান্দা এলাকায় জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়মের বাসায় নেতাকর্মীরা সমবেত হতে থাকে। সেখান থেকে মিছিল নিয়ে শহরের আজাদী ময়দান এলাকায় দলীয় কার্যালয়ে যাওয়ার কথা ছিল তাদের। কিন্তু দুপুর ১২টার দিকে মোটর সাইকেলযোগে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা খৈয়মের বাসার সামনে সমবেত বিএনপির নেতাকর্মীদের ধাওয়া করলে তারা পাল্টা ধাওয়া দেয়। এসময় যুবলীগ-ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা পিছু হটলে তাদের ফেলে যাওয়া কয়েকটি মোটর সাইকেল ভাংচুর করে বিএনপির নেতাকর্মীরা।

এরপর আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়মের নেতৃত্বে তার বাসভবন থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হলে পুলিশ সেটি আটকানোর চেষ্টা করে। কিন্তু পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে মিছিলটি শহরের প্রধান সড়কে পৌরসভার কার্যালয়ের সামনে এলে পুলিশ লাটিচার্জ করে নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসময় পুলিশ অন্তত ৩০ জনকে আটক করে।

এ ঘটনার পর আবারও আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়মের বাসভবনের সামনে সমবেত হয় বিএনপির নেতাকর্মীরা। এসময় তারা মিছিল করতে করতে আবারও বকুল তলার দিকে আসার চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়লে পুলিশও শটগান দিয়ে বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে।

জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়ম বলেন, আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ছেলেরা হামলা চালিয়েছে। পুলিশও বেপরোয়াভাবে লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণ করেছে। এতে আমাদের শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। প্রায় ৩০ জন নেতাকর্মীকে পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে গেছে। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

রাজবাড়ীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সালাহউদ্দিন বলেন, বিএনপির উশৃঙ্খল নেতাকর্মীরা পুলিশ লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়লে পুলিশ আত্মরক্ষার্থে শটগান দিয়ে বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। ইটপাটকেলের আঘাতে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

রাজবাড়ীতে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির সংঘর্ষ, আটক ৩০

Update Time : ১০:১১:০০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ মে ২০২৩

রাজবাড়ীতে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় বিএনপির অন্তত ৩০ জন নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (২০ মে) দুপুর ১২টার দিকে শহরের বকুলতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাজবাড়ীতে আগে থেকেই কর্মসূচি ঘোষণা দেয় জেলা বিএনপি। সকাল থেকেই পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে শহরের সজ্জনকান্দা এলাকায় জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়মের বাসায় নেতাকর্মীরা সমবেত হতে থাকে। সেখান থেকে মিছিল নিয়ে শহরের আজাদী ময়দান এলাকায় দলীয় কার্যালয়ে যাওয়ার কথা ছিল তাদের। কিন্তু দুপুর ১২টার দিকে মোটর সাইকেলযোগে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা খৈয়মের বাসার সামনে সমবেত বিএনপির নেতাকর্মীদের ধাওয়া করলে তারা পাল্টা ধাওয়া দেয়। এসময় যুবলীগ-ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা পিছু হটলে তাদের ফেলে যাওয়া কয়েকটি মোটর সাইকেল ভাংচুর করে বিএনপির নেতাকর্মীরা।

এরপর আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়মের নেতৃত্বে তার বাসভবন থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হলে পুলিশ সেটি আটকানোর চেষ্টা করে। কিন্তু পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে মিছিলটি শহরের প্রধান সড়কে পৌরসভার কার্যালয়ের সামনে এলে পুলিশ লাটিচার্জ করে নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসময় পুলিশ অন্তত ৩০ জনকে আটক করে।

এ ঘটনার পর আবারও আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়মের বাসভবনের সামনে সমবেত হয় বিএনপির নেতাকর্মীরা। এসময় তারা মিছিল করতে করতে আবারও বকুল তলার দিকে আসার চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়লে পুলিশও শটগান দিয়ে বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে।

জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়ম বলেন, আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ছেলেরা হামলা চালিয়েছে। পুলিশও বেপরোয়াভাবে লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণ করেছে। এতে আমাদের শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। প্রায় ৩০ জন নেতাকর্মীকে পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে গেছে। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

রাজবাড়ীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সালাহউদ্দিন বলেন, বিএনপির উশৃঙ্খল নেতাকর্মীরা পুলিশ লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়লে পুলিশ আত্মরক্ষার্থে শটগান দিয়ে বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। ইটপাটকেলের আঘাতে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।