ঢাকা ০৩:৪৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

ভূঞাপুরের চরাঞ্চলে ভুট্টার বাম্পার ফলন, দাম নিয়ে হতাশ চাষিরা

Reporter Name
  • Update Time : ০৫:৪২:৪২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ মে ২০২৩
  • / ৭৬ Time View

ফুয়াদ হাসান রঞ্জু, ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের যমুনা চরাঞ্চলে সহ উপজেলায় চলতি বছরে ভুট্টার বাম্পার ফলন হয়েছে। এখানকার মাটি ও আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ভুট্টার বাম্পার ফলন হয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষি বিভাগ। বর্তমানে ভুট্টা সংরক্ষণ ও মাড়াই কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে এখানকার কৃষাণ কৃষাণীরা। তবে স্থানীয় হাট-বাজারগুলোতে আশানুরূপ ভুট্টার দাম না পাওয়ায় হতাশায় ভুগছেন চাষিরা। চলতি বছরের বন্যায় উপজেলার অর বুকে জেগে উঠা বালুচরে ভুট্টা চাষ করে তাদের বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখেন তারা। ভুট্টা চাষ অত্যন্ত সহজ ও লাভজনক। তাছাড়া অন্যান্য ফসলের মতো সার ও সেচের তেমন প্রয়োজন হয়না। হাট-বাজার গুলোতেও চরাঞ্চলের অন্যান্য ফসলের চেয়ে ভুট্টার চাহিদা বেশি থাকলেও ভালো দাম না পাওয়ায় হতাশ চাষিরা।সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে গিয়ে দেখাযায়, সেখানে প্রতি মন শুকনা ভুট্টা বিক্রি ৮’শ থেকে ১ হাজার টাকায়।

উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নের যমুনা চরাঞ্চলের ভুট্টা চাষিরা বলেন- প্রতি বছর বন্যায় আমাদের বীজতলা, সবজি খেত সহ সকল ফসল পানিতে তলিয়ে নষ্ট হয়ে যায়। এর ফলে আমরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হই। আর এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বন্যা পরবর্তী সময়ে যমুনার বুকে জেগে উঠা চরে আমরা ভুট্টা চাষ করে থাকি। দাম কম হওয়ায় এবছ আমাদের তেমন একটা লাভ হবে না ।

রামপুর গ্রামের ভুট্টা চাষি মফিজ উদ্দিন বলেন, আমাদের এখানকার মাটি ভুট্টা চাষের উপযোগী হওয়ার আমাদের চরাঞ্চলের ভুট্টার বাম্পার ফলন হয়েছে। এবছর আমি প্রায় ১০ বিঘা জমিতে ভুট্টার চাষ করেছি। বিঘা প্রতি প্রায ৩০ মণ ফলন পেয়েছি।

এবিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. হুমায়ুন কবির বলেন, আমাদের যমুনা চরাঞ্চলের বালিমাটি ভুট্টা চাষের জন্য অত্যন্ত উপযোগী। বন্যা পরবর্তী সময়ে এখানকার কৃষকরা বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি ভুট্টা চাষ করেন। গত বছর বাজারে ভুট্টার ভালো দাম পাওয়ায় এবছর উপজেলায় লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে ভুট্টা আবাদ। আমরা উপজেলা কৃষি অফিস থেকে বিনামূল্যে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে উন্নত মানের ভুট্টার বীজ ও সার বিতরণ করেছি। মাঠ পর্যায়ে গিয়ে আমরা কৃষকদেরকে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়েছি। গত বছর উপজেলার যমুনা চরাঞ্চলের ভুট্টা চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ হাজার ১৫২ হেক্টর। এবছর এর লক্ষ্যমাত্রা এর লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে আবাদ হয়েছে ৩ হাজার ১০ হেক্টর। ভুট্টা উৎপাদন হয়েছে ২৭ হাজার ৬৪২ মেট্রিকটন। আগামীতে চরাঞ্চল সহ উপজেলায় ভুট্টার আবাদ আরো ব্যাপক পরিসরে বৃদ্ধি পাবে।

Please Share This Post in Your Social Media

ভূঞাপুরের চরাঞ্চলে ভুট্টার বাম্পার ফলন, দাম নিয়ে হতাশ চাষিরা

Update Time : ০৫:৪২:৪২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ মে ২০২৩

ফুয়াদ হাসান রঞ্জু, ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের যমুনা চরাঞ্চলে সহ উপজেলায় চলতি বছরে ভুট্টার বাম্পার ফলন হয়েছে। এখানকার মাটি ও আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ভুট্টার বাম্পার ফলন হয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষি বিভাগ। বর্তমানে ভুট্টা সংরক্ষণ ও মাড়াই কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে এখানকার কৃষাণ কৃষাণীরা। তবে স্থানীয় হাট-বাজারগুলোতে আশানুরূপ ভুট্টার দাম না পাওয়ায় হতাশায় ভুগছেন চাষিরা। চলতি বছরের বন্যায় উপজেলার অর বুকে জেগে উঠা বালুচরে ভুট্টা চাষ করে তাদের বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখেন তারা। ভুট্টা চাষ অত্যন্ত সহজ ও লাভজনক। তাছাড়া অন্যান্য ফসলের মতো সার ও সেচের তেমন প্রয়োজন হয়না। হাট-বাজার গুলোতেও চরাঞ্চলের অন্যান্য ফসলের চেয়ে ভুট্টার চাহিদা বেশি থাকলেও ভালো দাম না পাওয়ায় হতাশ চাষিরা।সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে গিয়ে দেখাযায়, সেখানে প্রতি মন শুকনা ভুট্টা বিক্রি ৮’শ থেকে ১ হাজার টাকায়।

উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নের যমুনা চরাঞ্চলের ভুট্টা চাষিরা বলেন- প্রতি বছর বন্যায় আমাদের বীজতলা, সবজি খেত সহ সকল ফসল পানিতে তলিয়ে নষ্ট হয়ে যায়। এর ফলে আমরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হই। আর এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বন্যা পরবর্তী সময়ে যমুনার বুকে জেগে উঠা চরে আমরা ভুট্টা চাষ করে থাকি। দাম কম হওয়ায় এবছ আমাদের তেমন একটা লাভ হবে না ।

রামপুর গ্রামের ভুট্টা চাষি মফিজ উদ্দিন বলেন, আমাদের এখানকার মাটি ভুট্টা চাষের উপযোগী হওয়ার আমাদের চরাঞ্চলের ভুট্টার বাম্পার ফলন হয়েছে। এবছর আমি প্রায় ১০ বিঘা জমিতে ভুট্টার চাষ করেছি। বিঘা প্রতি প্রায ৩০ মণ ফলন পেয়েছি।

এবিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. হুমায়ুন কবির বলেন, আমাদের যমুনা চরাঞ্চলের বালিমাটি ভুট্টা চাষের জন্য অত্যন্ত উপযোগী। বন্যা পরবর্তী সময়ে এখানকার কৃষকরা বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি ভুট্টা চাষ করেন। গত বছর বাজারে ভুট্টার ভালো দাম পাওয়ায় এবছর উপজেলায় লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে ভুট্টা আবাদ। আমরা উপজেলা কৃষি অফিস থেকে বিনামূল্যে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে উন্নত মানের ভুট্টার বীজ ও সার বিতরণ করেছি। মাঠ পর্যায়ে গিয়ে আমরা কৃষকদেরকে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়েছি। গত বছর উপজেলার যমুনা চরাঞ্চলের ভুট্টা চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ হাজার ১৫২ হেক্টর। এবছর এর লক্ষ্যমাত্রা এর লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে আবাদ হয়েছে ৩ হাজার ১০ হেক্টর। ভুট্টা উৎপাদন হয়েছে ২৭ হাজার ৬৪২ মেট্রিকটন। আগামীতে চরাঞ্চল সহ উপজেলায় ভুট্টার আবাদ আরো ব্যাপক পরিসরে বৃদ্ধি পাবে।