ঢাকা ১২:১৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
লন্ডনে ‘ডিজিটাল থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ অগ্রযাত্রায় আমাদের করণীয়’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত সিলেটে বন্যায় ৭ লাখ ৭২ হাজার শিশু ক্ষতিগ্রস্ত হাঁড়িভাঙ্গা আম ও সবজি সংরক্ষণের মিঠাপুকুরে বিশেষায়িত হিমাগার স্থাপিত হবে – কৃষিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর ভারত-চীন সফরেই তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের পথ সুগম করার দাবি সৈয়দপুর হিউম্যানিটি ইন ডিস্ট্রেস (হিড) এর কোরবানি প্রোগ্রামে ১৪,৩৯,০০০ টাকার দুর্নীতির অভিযোগ নামাজ-পড়ালেখা নিয়ে শাসন করায় ফাঁস নিল কিশোরী ১ম বঙ্গবন্ধু ইন্দো-বাংলা ফুটসাল সিরিজের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত দেশে নয়টি ড্রেজিং স্টেশন তৈরি করা হচ্ছে : সিলেটে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী সিলেটে জনদুর্ভোগ অব্যাহত; পানি কোথাও কমছে কোথাও বাড়ছে তিস্তার পানি কমতে শুরু করেছে, বাড়ছে নদীভাঙন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নাঈম হত্যার ১৬ বছর পর ৩ জনের যাবজ্জীবন ৩ জনের ৭ বছরের কারাদন্ড

আঃ হান্নান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি
  • Update Time : ০৭:১৯:৪৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ জুন ২০২৪
  • / ২৭ Time View

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মো. নাঈম (১৭) হত্যার মামলার ১৬ বছর পর আদালতের রায়ে ৩ জন আসামীকে যাবজ্জীবন ও ৩জন আসামীকে ৭ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করেছে।

রোববার (৯ জুন) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ২য় আদালতের বিচারক আব্দুল হান্নান এই রায় প্রদান করেন।

যাবজ্জীবন সাজা প্রাপ্তরা হলেন, জেলা সদরের উত্তর পৈরতলার দাড়িয়াপুর গ্রামের কানু দাসের ছেলে কাজল দাস (৩৯), রঞ্জন দাসের ছেলে জুনু দাস (৩৮) ও অশ্বিনী দাসের ছেলে অভিরাম দাস (৩৬)।

এ ছাড়া ৭ বছর করে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে একই গ্রামের রঞ্জন দাসের ছেলে জুয়েল দাস (৩৯), হীরা লাল দাসের ছেলে স্বপন কুমার দাস (৪৪) ও হরী দাসের ছেলে অশ্বিনী দাস (৭৬)।

সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে রায় প্রদানকালে শুধু স্বপন কুমার দাস উপস্থিত ছিলেন, বাকি সব পলাতক রয়েছেন।

মামলার নথি ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০০৮ সালের ১৬জুন রাতে নিখোঁজ হন জেলা শহরের উত্তর পৈরতলার শের আলী মিয়ার ছেলে মো. নাঈম। এই ঘটনার দুইদিন পর ১৮ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি করে পরিবার। পরে ২৩ জুন উত্তর পৈরতলা-কালিসীমা সড়কের সেতুর নিচে গলিত স্থানীয়রা নাঈমের মরদেহ উদ্ধার করে। মরদেহ উদ্ধারের পর নাঈমের চাচা আলী মিয়া বাদি হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর চাঞ্চল্যকর এই ঘটনায় ভৈরব র‌্যাব ক্যাম্পের সদস্যরা স্বপন দাস, উত্তম দাস ও নন্দন দাসকে গ্রেফতার করে।

তারা আদালতে উপস্থিত হয়ে ১৬৪ ধারা জবানবন্দিতে জানায়, ১৬ জুন রাতে নাঈমকে জুয়া খেলার আসর থেকে মেয়ে (পতিতা) আছে বলে জুয়েল ফুসলিয়ে স্থানীয় একটি পুকুর পাড়ে নিয়ে যায়। সেখানে কাজল দাস, জুনু দাস ও অভিরাম দাসসহ এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে নাঈমকে হত্যা করে। হত্যার পর মরদেহ লুকিয়ে ফেলতে সহায়তা করেন জুয়েল দাস, স্বপন দাস ও অশ্বিনী দাস।

পরে তদন্ত শেষে ২০০৯ সালের ৪ ফেব্রুয়ারী পুলিশ আদালতে চার্জসীট দাখিল করে। কিন্তু আসামি পক্ষ নারাজি দিলে মামলাটি সিআইডিতে অধিকতর তদন্তের জন্যে স্থানাস্তর করা হয়। পরে তদন্ত শেষে সিআইডি ২০১০ সালের ২৯ জুলাই ৬জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে পুনঃ চার্জসীট দাখিল করে। ২০১৩ সালের ১০ অক্টোবর আদালত চার্জ গঠন করে। পরে সাক্ষ্যপ্রমাণ, যুক্তিতর্ক সহ আনুষঙ্গিক কার্যক্রম শেষে রোববার (৯ জুন) আদালত এই মামলার রায় প্রদান করেন। আদালত এই মামলাত ৩ জনকে যাবজ্জীবন ও ৩ জনকে ৭ বছর করে কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নাঈম হত্যার ১৬ বছর পর ৩ জনের যাবজ্জীবন ৩ জনের ৭ বছরের কারাদন্ড

Update Time : ০৭:১৯:৪৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ জুন ২০২৪

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মো. নাঈম (১৭) হত্যার মামলার ১৬ বছর পর আদালতের রায়ে ৩ জন আসামীকে যাবজ্জীবন ও ৩জন আসামীকে ৭ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করেছে।

রোববার (৯ জুন) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ২য় আদালতের বিচারক আব্দুল হান্নান এই রায় প্রদান করেন।

যাবজ্জীবন সাজা প্রাপ্তরা হলেন, জেলা সদরের উত্তর পৈরতলার দাড়িয়াপুর গ্রামের কানু দাসের ছেলে কাজল দাস (৩৯), রঞ্জন দাসের ছেলে জুনু দাস (৩৮) ও অশ্বিনী দাসের ছেলে অভিরাম দাস (৩৬)।

এ ছাড়া ৭ বছর করে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে একই গ্রামের রঞ্জন দাসের ছেলে জুয়েল দাস (৩৯), হীরা লাল দাসের ছেলে স্বপন কুমার দাস (৪৪) ও হরী দাসের ছেলে অশ্বিনী দাস (৭৬)।

সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে রায় প্রদানকালে শুধু স্বপন কুমার দাস উপস্থিত ছিলেন, বাকি সব পলাতক রয়েছেন।

মামলার নথি ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০০৮ সালের ১৬জুন রাতে নিখোঁজ হন জেলা শহরের উত্তর পৈরতলার শের আলী মিয়ার ছেলে মো. নাঈম। এই ঘটনার দুইদিন পর ১৮ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি করে পরিবার। পরে ২৩ জুন উত্তর পৈরতলা-কালিসীমা সড়কের সেতুর নিচে গলিত স্থানীয়রা নাঈমের মরদেহ উদ্ধার করে। মরদেহ উদ্ধারের পর নাঈমের চাচা আলী মিয়া বাদি হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর চাঞ্চল্যকর এই ঘটনায় ভৈরব র‌্যাব ক্যাম্পের সদস্যরা স্বপন দাস, উত্তম দাস ও নন্দন দাসকে গ্রেফতার করে।

তারা আদালতে উপস্থিত হয়ে ১৬৪ ধারা জবানবন্দিতে জানায়, ১৬ জুন রাতে নাঈমকে জুয়া খেলার আসর থেকে মেয়ে (পতিতা) আছে বলে জুয়েল ফুসলিয়ে স্থানীয় একটি পুকুর পাড়ে নিয়ে যায়। সেখানে কাজল দাস, জুনু দাস ও অভিরাম দাসসহ এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে নাঈমকে হত্যা করে। হত্যার পর মরদেহ লুকিয়ে ফেলতে সহায়তা করেন জুয়েল দাস, স্বপন দাস ও অশ্বিনী দাস।

পরে তদন্ত শেষে ২০০৯ সালের ৪ ফেব্রুয়ারী পুলিশ আদালতে চার্জসীট দাখিল করে। কিন্তু আসামি পক্ষ নারাজি দিলে মামলাটি সিআইডিতে অধিকতর তদন্তের জন্যে স্থানাস্তর করা হয়। পরে তদন্ত শেষে সিআইডি ২০১০ সালের ২৯ জুলাই ৬জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে পুনঃ চার্জসীট দাখিল করে। ২০১৩ সালের ১০ অক্টোবর আদালত চার্জ গঠন করে। পরে সাক্ষ্যপ্রমাণ, যুক্তিতর্ক সহ আনুষঙ্গিক কার্যক্রম শেষে রোববার (৯ জুন) আদালত এই মামলার রায় প্রদান করেন। আদালত এই মামলাত ৩ জনকে যাবজ্জীবন ও ৩ জনকে ৭ বছর করে কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেন।