ঢাকা ০৫:১০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

‘বিলডাকিনি’ সিনেমার চিত্রনাট্য চুরির অভিযোগ মিথ্যা: প্রযোজক

বিনোদন ডেস্ক
  • Update Time : ১০:৪০:২৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৭৮ Time View

কথাসাহিত্যিক নূরুদ্দিন জাহাঙ্গীর রচিত উপন্যাস ‘বিলডাকিনি’ অবলম্বনে নির্মিত সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র ‘বিলডাকিনি’র চিত্রনাট্য চুরির অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেছেন চলচ্চিত্রটির প্রযোজক আব্দুল মমিন খান। বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ দাবি করেন তিনি।

বিলডাকিনি চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য চুরির অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে বিবৃতিতে তিনি বলেন, বেশ কিছুদিন ধরে আমি লক্ষ করছি-বিলডাকিনি চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য চুরির মিথ্যা ও বিভ্রান্তিমূলক অভিযোগ এনে মঞ্জুরুল ইসলাম মেঘ নামের এক ব্যক্তি রাজধানীর শাহবাগে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে। একই সঙ্গে তিনি বিভিন্ন গণমাধ্যমে মিথ্যা, বিভ্রান্ত্রিমূলক তথ্যসংবলিত বক্তব্য প্রদান করছে।

তিনি আরও বলেন, ‘বিলডাকিনি’ চলচ্চিত্রটি তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের ২০১৯-২০ অর্থবছরে অনুদানপ্রাপ্ত একটি চলচ্চিত্র। যা আনকাট সেন্সরের পর মুক্তির অপেক্ষায় আছে। ২০১৯ সালে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়া আমার প্রস্তাবে মঞ্জুরুল ইসলাম বিলডাকিনি চলচ্চিত্রটির পরিচালক এবং চিত্রনাট্যকার হিসাবে নাম দেওয়া ছিল। পরবর্তীতে মঞ্জুরুল ইসলাম নিয়মবহির্ভুতভাবে চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রথম কিস্তির অর্থ তাকে নগদ দিয়ে দেওয়াসহ কিছু অনৈতিক প্রস্তাব প্রদান করেন। তার এসব প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় চলচ্চিত্র পরিচালনা না করার হুমকি প্রদান করেন। চলচ্চিত্রের ভবিষ্যৎ, আর্থিক ও পরিচালনা ঝুঁকির কথা চিন্তা করে মন্ত্রণালয়ের পরামর্শ অনুযায়ী শুটিং এবং কাস্টিংয়ের পূর্বেই পরিচালক পরিবর্তনের জন্য তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এবং সচিব বরাবর আবেদন করি।

তিনি বলেন, আমার আবেদনের পর মন্ত্রণালয় ২০২১ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর পরিচালক পরিবর্তন অনুমোদন করে এবং আমার প্রস্তাব অনুযায়ী ফজলুল কবির তুহিনকে ‘বিলডাকিনি’ চলচ্চিত্রের নতুন পরিচালক নিয়োগের অনুমতি দেন। ফজলুল কবির তুহিন পরিচালক নিযুক্ত হওয়ার পর রচিত পূর্বের চিত্রনাট্যটি পর্যালোচনা করে নতুন চিত্রনাট্য রচনা করার প্রস্তাব আমার কাছে করেন। এরপর শেখর দাস, ফজলুল কবির তুহিন এবং উপন্যাসের লেখক নূরুদ্দিন জাহাঙ্গীর আমার পরার্মশক্রমে একটি নতুন চিত্রনাট্য রচনা করেন। এই নতুন চিত্রনাট্য এবং পূর্বের লিখিত চিত্রনাট্য যাচাইপূর্বক বাতিল করে নতুন চিত্রনাট্য অনুমোদনের জন্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করি। আবেদনের প্রেক্ষিতে মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট কমিটি যাচাই বাছাই করে নতুন চিত্রনাট্যটির অনুমোদন দেয়। ফজুলল কবির তুহিন, শেখর দাস, উপন্যাসের লেখক নূরুদ্দিন জাহাঙ্গীর রচিত চিত্রনাট্য বাংলাদেশ কপিরাইট অফিসে অনুমোদনের জন্য আবেদন করি। বিধিমোতাবেক কপিরাইট অফিস নতুন চিত্রনাট্যটির কপিরাইট সনদ প্রদান করে।

ঈর্ষান্বিত হয়ে উপন্যাসের লেখকের নাম জড়িয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার চালানো হচ্ছে উল্লেখ তিনি আরও বলেন, ‘বিলডাকিনি উপন্যাসের লেখক নূরুদ্দিন জাহাঙ্গীর চলতি বছর ‘বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার-২০২৩’ অর্জন করেছেন। তার এ অর্জনকে অনেকেই মেনে নিতে পারছে না। ঈর্ষান্বিত হয়ে তার নাম জড়িয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

‘বিলডাকিনি’ সিনেমার চিত্রনাট্য চুরির অভিযোগ মিথ্যা: প্রযোজক

Update Time : ১০:৪০:২৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

কথাসাহিত্যিক নূরুদ্দিন জাহাঙ্গীর রচিত উপন্যাস ‘বিলডাকিনি’ অবলম্বনে নির্মিত সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র ‘বিলডাকিনি’র চিত্রনাট্য চুরির অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেছেন চলচ্চিত্রটির প্রযোজক আব্দুল মমিন খান। বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ দাবি করেন তিনি।

বিলডাকিনি চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য চুরির অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে বিবৃতিতে তিনি বলেন, বেশ কিছুদিন ধরে আমি লক্ষ করছি-বিলডাকিনি চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য চুরির মিথ্যা ও বিভ্রান্তিমূলক অভিযোগ এনে মঞ্জুরুল ইসলাম মেঘ নামের এক ব্যক্তি রাজধানীর শাহবাগে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে। একই সঙ্গে তিনি বিভিন্ন গণমাধ্যমে মিথ্যা, বিভ্রান্ত্রিমূলক তথ্যসংবলিত বক্তব্য প্রদান করছে।

তিনি আরও বলেন, ‘বিলডাকিনি’ চলচ্চিত্রটি তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের ২০১৯-২০ অর্থবছরে অনুদানপ্রাপ্ত একটি চলচ্চিত্র। যা আনকাট সেন্সরের পর মুক্তির অপেক্ষায় আছে। ২০১৯ সালে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়া আমার প্রস্তাবে মঞ্জুরুল ইসলাম বিলডাকিনি চলচ্চিত্রটির পরিচালক এবং চিত্রনাট্যকার হিসাবে নাম দেওয়া ছিল। পরবর্তীতে মঞ্জুরুল ইসলাম নিয়মবহির্ভুতভাবে চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রথম কিস্তির অর্থ তাকে নগদ দিয়ে দেওয়াসহ কিছু অনৈতিক প্রস্তাব প্রদান করেন। তার এসব প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় চলচ্চিত্র পরিচালনা না করার হুমকি প্রদান করেন। চলচ্চিত্রের ভবিষ্যৎ, আর্থিক ও পরিচালনা ঝুঁকির কথা চিন্তা করে মন্ত্রণালয়ের পরামর্শ অনুযায়ী শুটিং এবং কাস্টিংয়ের পূর্বেই পরিচালক পরিবর্তনের জন্য তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এবং সচিব বরাবর আবেদন করি।

তিনি বলেন, আমার আবেদনের পর মন্ত্রণালয় ২০২১ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর পরিচালক পরিবর্তন অনুমোদন করে এবং আমার প্রস্তাব অনুযায়ী ফজলুল কবির তুহিনকে ‘বিলডাকিনি’ চলচ্চিত্রের নতুন পরিচালক নিয়োগের অনুমতি দেন। ফজলুল কবির তুহিন পরিচালক নিযুক্ত হওয়ার পর রচিত পূর্বের চিত্রনাট্যটি পর্যালোচনা করে নতুন চিত্রনাট্য রচনা করার প্রস্তাব আমার কাছে করেন। এরপর শেখর দাস, ফজলুল কবির তুহিন এবং উপন্যাসের লেখক নূরুদ্দিন জাহাঙ্গীর আমার পরার্মশক্রমে একটি নতুন চিত্রনাট্য রচনা করেন। এই নতুন চিত্রনাট্য এবং পূর্বের লিখিত চিত্রনাট্য যাচাইপূর্বক বাতিল করে নতুন চিত্রনাট্য অনুমোদনের জন্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করি। আবেদনের প্রেক্ষিতে মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট কমিটি যাচাই বাছাই করে নতুন চিত্রনাট্যটির অনুমোদন দেয়। ফজুলল কবির তুহিন, শেখর দাস, উপন্যাসের লেখক নূরুদ্দিন জাহাঙ্গীর রচিত চিত্রনাট্য বাংলাদেশ কপিরাইট অফিসে অনুমোদনের জন্য আবেদন করি। বিধিমোতাবেক কপিরাইট অফিস নতুন চিত্রনাট্যটির কপিরাইট সনদ প্রদান করে।

ঈর্ষান্বিত হয়ে উপন্যাসের লেখকের নাম জড়িয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার চালানো হচ্ছে উল্লেখ তিনি আরও বলেন, ‘বিলডাকিনি উপন্যাসের লেখক নূরুদ্দিন জাহাঙ্গীর চলতি বছর ‘বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার-২০২৩’ অর্জন করেছেন। তার এ অর্জনকে অনেকেই মেনে নিতে পারছে না। ঈর্ষান্বিত হয়ে তার নাম জড়িয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।