ঢাকা ০৬:৫৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
বিমানবন্দর-টঙ্গী থেকে ধারালো অস্ত্রসহ ৮ ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার কিশোরগঞ্জে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্কুলের উন্নয়ন খাতের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ সাংবাদিককে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা ও গ্র্যাজুয়েট হতে হবে বেনজীরের আরও ১১৩ দলিলের সম্পদ ও গুলশানের ৪টি ফ্ল্যাট জব্দের আদেশ সুজানগরে গৃহবধূকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে কাউকে ছাড় দেব না : ইসি রাশেদা ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে একটি বাড়ি থেকে ১২ কোটি রুপির স্বর্ণ জব্দ সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণের আহ্বান প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রীর ঝালকাঠিতে রেমালের প্রভাবে নদীর পানি বেড়েছে ২১৭ নেতাকে বহিষ্কার করল বিএনপি

বিএনপির সঙ্গে সংলাপ নিয়ে আমুর বক্তব্য ব্যক্তিগত: তথ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার
  • Update Time : ০৮:১৫:৫৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ জুন ২০২৩
  • / ২৭১ Time View

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘বিএনপির সাথে সংলাপ নিয়ে আমির হোসেন আমুর বক্তব্য তাঁর ব্যক্তিগত। এটি সরকার বা আওয়ামী লীগ বা ১৪ দলের বক্তব্য নয়।’

বুধবার (৭ জুন) দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে কালে তিনি এ কথা জানান।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমির হোসেন আমু আমাদের ১৪ দলের অন্যতম জ্যেষ্ঠ নেতা। তিনি যে বক্তব্য দিয়েছেন সেটি তার ব্যক্তিগত বক্তব্য। তাঁর এ বক্তব্য নিয়ে আমাদের দলের মধ্যে, সরকারের মধ্যে কোনো আলোচনা হয় নাই। এমনকি ১৪ দলের মধ্যেও কোনো আলোচনা হয় নাই। এটি সম্পূর্ণভাবে তার ব্যক্তিগত বক্তব্য। তবে তার সাথে যোগাযোগ করা হয়েছিলো, তিনি বলেছেন আসলে গণমাধ্যমে যেভাবে এসেছে তিনি ঠিক সেভাবে বলেন নাই। যেভাবেই আসুক এটি তার ব্যক্তিগত অভিমত, দল, সরকার কিংবা ১৪ দলের কোথাও এ নিয়ে আলোচনা হয় নাই।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যেভাবে ভারতে নির্বাচনকালীন সময়ে চলতি সরকার দায়িত্ব পালন করে, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, যুক্তরাজ্য পালন করে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টও পদত্যাগ করেন না, তিনিও নির্বাচনকালীন সময়ে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেন। যেভাবে সমস্ত গণতান্ত্রিক দেশে চলতি সরকার নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব পালন করে ঠিক সেভাবে আমাদের দেশেও বর্তমান সরকার নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব পালন করবে এবং প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। সেই সরকারের আকার কি হবে না হবে সেটি হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার।’

সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচন অনুষ্ঠান করবে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশনের আয়োজন এবং ব্যবস্থাপনাতেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে, যারা গণতন্ত্রের অভিযাত্রা অব্যাহত রাখতে চায়, তাদের অবশ্যই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা প্রয়োজন। নির্বাচন কমিশনকে আমাদের সরকার সর্বোতভাবে সহায়তা করবে, যাতে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক, উৎসবমুখর একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আমরা চাই সে নির্বাচনে বিএনপিসহ সমস্ত রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করুক এবং সবার অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশে একটি অত্যন্ত চমৎকার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হোক, বিশ্বের কাছে উদাহরণ হিসেবে একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হোক, সেটিই আমরা চাই। নির্বাচন নিয়ে যদি কোনো প্রসঙ্গ থাকে বিএনপিকে সেটি নির্বাচন কমিশনের সাথে আলোচনা করতে হবে কারণ নির্বাচন আয়োজন অনুষ্ঠান করছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশন যদি আমাদের ডাকে আমরাও যাবো।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনকে ভয় পায়। তারা ২০১৪ সালের নির্বাচন প্রতিহত করার চেষ্টা করেছে, ৫শ’ ভোট কেন্দ্র জ্বালিয়ে দিয়েছে, দুইজন প্রিজাইডিং অফিসারকে হত্যা করেছে এবং সাড়ে ৩ হাজার মানুষ পুড়িয়েছে, তার মধ্যে পাঁচশ’ মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে। তারা আসলে নির্বাচন প্রতিহত করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত এবং সেই কথাটিই মির্জা ফখরুল সাহেব আবার বলেছেন। কিন্তু এবার আর তাদের পক্ষে নির্বাচন প্রতিহত করা কিম্বা নির্বাচন বর্জন করা সম্ভবপর হবে না। বিভিন্ন সময় তারা এ রকম অনুযোগ বিদেশিদের কাছে করে এসেছে কিন্তু এবার সেটিও করা সম্ভবপর হবে না। দেশে একটি অবশ্যই সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘অবশ্যই বিএনপি একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতেই পারে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে কি করবে না। কিন্তু তাদের উদ্দেশ্য তা নয়, তাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে নির্বাচন ভন্ডুল করে দেশে একটি বিশেষ পরিস্থিতি তৈরি করা। কিন্তু নির্বাচন জনগণের অংশগ্রহণ হচ্ছে মুখ্য বিষয়। জনগণ যদি ব্যাপকভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে এবং ভোট অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ হয় তাহলে সেটি জনগণের অংশগ্রহণমূলক একটি ভালো নির্বাচন।’

তথ্যমন্ত্রী এ সময় বলেন, ‘আরেকটি বিষয় হচ্ছে দেখুন, বিএনপি হচ্ছে একটি সন্ত্রাসী রাজনৈতিক দল। কানাডার আদালত কর্তৃক রায়প্রাপ্ত ভ্যালিডেটেড সন্ত্রাসী অর্থাৎ সিলমারা সন্ত্রাসী দল, যারা মানুষ পোড়ায়, গাড়ি-ঘোড়া পোড়ায়, পুলিশের ওপর হামলা চালায়, মানুষের ওপর হামলা চালায়, যারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলা চালায়। তাদের হামলায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের এস এম কিবরিয়া, আহসান উল্লাহ মাস্টার, খুলনার মনজুর ইমামসহ অনেকেই নিহত হয়েছে। তাদের হামলায় আমাদের শেখ হেলাল এমপির জনসভায় অনেক মানুষ নিহত ও আহত হয়েছে, আদালতের বিচারক নিহত হয়েছে। এবং বিএনপি যাদের পৃষ্ঠপোষকতা করে আর যারা বিএনপিকে পৃষ্ঠপোষকতা করে তাদের হামলায় সারাদেশে ৫শ’ জায়গায় একযোগে বোমা ফুটেছে। বেগম খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় পুত্রের অস্বাভাবিক মৃত্যুর পর তার প্রতি সহানুভূতি জানাতে দেশের প্রধানমন্ত্রী গিয়ে বেগম জিয়ার দরজায় আধাঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকার পরও যারা দরজা খোলে নাই, যারা অগ্নিসন্ত্রাস চালায়, মানুষের ওপর হামলা চালায় তাদের সাথে আলোচনা করে কি হবে, সেটি হচ্ছে বড় প্রশ্ন।’

Please Share This Post in Your Social Media

বিএনপির সঙ্গে সংলাপ নিয়ে আমুর বক্তব্য ব্যক্তিগত: তথ্যমন্ত্রী

Update Time : ০৮:১৫:৫৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ জুন ২০২৩

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘বিএনপির সাথে সংলাপ নিয়ে আমির হোসেন আমুর বক্তব্য তাঁর ব্যক্তিগত। এটি সরকার বা আওয়ামী লীগ বা ১৪ দলের বক্তব্য নয়।’

বুধবার (৭ জুন) দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে কালে তিনি এ কথা জানান।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমির হোসেন আমু আমাদের ১৪ দলের অন্যতম জ্যেষ্ঠ নেতা। তিনি যে বক্তব্য দিয়েছেন সেটি তার ব্যক্তিগত বক্তব্য। তাঁর এ বক্তব্য নিয়ে আমাদের দলের মধ্যে, সরকারের মধ্যে কোনো আলোচনা হয় নাই। এমনকি ১৪ দলের মধ্যেও কোনো আলোচনা হয় নাই। এটি সম্পূর্ণভাবে তার ব্যক্তিগত বক্তব্য। তবে তার সাথে যোগাযোগ করা হয়েছিলো, তিনি বলেছেন আসলে গণমাধ্যমে যেভাবে এসেছে তিনি ঠিক সেভাবে বলেন নাই। যেভাবেই আসুক এটি তার ব্যক্তিগত অভিমত, দল, সরকার কিংবা ১৪ দলের কোথাও এ নিয়ে আলোচনা হয় নাই।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যেভাবে ভারতে নির্বাচনকালীন সময়ে চলতি সরকার দায়িত্ব পালন করে, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, যুক্তরাজ্য পালন করে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টও পদত্যাগ করেন না, তিনিও নির্বাচনকালীন সময়ে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেন। যেভাবে সমস্ত গণতান্ত্রিক দেশে চলতি সরকার নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব পালন করে ঠিক সেভাবে আমাদের দেশেও বর্তমান সরকার নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব পালন করবে এবং প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। সেই সরকারের আকার কি হবে না হবে সেটি হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার।’

সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচন অনুষ্ঠান করবে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশনের আয়োজন এবং ব্যবস্থাপনাতেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে, যারা গণতন্ত্রের অভিযাত্রা অব্যাহত রাখতে চায়, তাদের অবশ্যই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা প্রয়োজন। নির্বাচন কমিশনকে আমাদের সরকার সর্বোতভাবে সহায়তা করবে, যাতে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক, উৎসবমুখর একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আমরা চাই সে নির্বাচনে বিএনপিসহ সমস্ত রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করুক এবং সবার অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশে একটি অত্যন্ত চমৎকার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হোক, বিশ্বের কাছে উদাহরণ হিসেবে একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হোক, সেটিই আমরা চাই। নির্বাচন নিয়ে যদি কোনো প্রসঙ্গ থাকে বিএনপিকে সেটি নির্বাচন কমিশনের সাথে আলোচনা করতে হবে কারণ নির্বাচন আয়োজন অনুষ্ঠান করছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশন যদি আমাদের ডাকে আমরাও যাবো।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনকে ভয় পায়। তারা ২০১৪ সালের নির্বাচন প্রতিহত করার চেষ্টা করেছে, ৫শ’ ভোট কেন্দ্র জ্বালিয়ে দিয়েছে, দুইজন প্রিজাইডিং অফিসারকে হত্যা করেছে এবং সাড়ে ৩ হাজার মানুষ পুড়িয়েছে, তার মধ্যে পাঁচশ’ মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে। তারা আসলে নির্বাচন প্রতিহত করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত এবং সেই কথাটিই মির্জা ফখরুল সাহেব আবার বলেছেন। কিন্তু এবার আর তাদের পক্ষে নির্বাচন প্রতিহত করা কিম্বা নির্বাচন বর্জন করা সম্ভবপর হবে না। বিভিন্ন সময় তারা এ রকম অনুযোগ বিদেশিদের কাছে করে এসেছে কিন্তু এবার সেটিও করা সম্ভবপর হবে না। দেশে একটি অবশ্যই সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘অবশ্যই বিএনপি একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতেই পারে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে কি করবে না। কিন্তু তাদের উদ্দেশ্য তা নয়, তাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে নির্বাচন ভন্ডুল করে দেশে একটি বিশেষ পরিস্থিতি তৈরি করা। কিন্তু নির্বাচন জনগণের অংশগ্রহণ হচ্ছে মুখ্য বিষয়। জনগণ যদি ব্যাপকভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে এবং ভোট অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ হয় তাহলে সেটি জনগণের অংশগ্রহণমূলক একটি ভালো নির্বাচন।’

তথ্যমন্ত্রী এ সময় বলেন, ‘আরেকটি বিষয় হচ্ছে দেখুন, বিএনপি হচ্ছে একটি সন্ত্রাসী রাজনৈতিক দল। কানাডার আদালত কর্তৃক রায়প্রাপ্ত ভ্যালিডেটেড সন্ত্রাসী অর্থাৎ সিলমারা সন্ত্রাসী দল, যারা মানুষ পোড়ায়, গাড়ি-ঘোড়া পোড়ায়, পুলিশের ওপর হামলা চালায়, মানুষের ওপর হামলা চালায়, যারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলা চালায়। তাদের হামলায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের এস এম কিবরিয়া, আহসান উল্লাহ মাস্টার, খুলনার মনজুর ইমামসহ অনেকেই নিহত হয়েছে। তাদের হামলায় আমাদের শেখ হেলাল এমপির জনসভায় অনেক মানুষ নিহত ও আহত হয়েছে, আদালতের বিচারক নিহত হয়েছে। এবং বিএনপি যাদের পৃষ্ঠপোষকতা করে আর যারা বিএনপিকে পৃষ্ঠপোষকতা করে তাদের হামলায় সারাদেশে ৫শ’ জায়গায় একযোগে বোমা ফুটেছে। বেগম খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় পুত্রের অস্বাভাবিক মৃত্যুর পর তার প্রতি সহানুভূতি জানাতে দেশের প্রধানমন্ত্রী গিয়ে বেগম জিয়ার দরজায় আধাঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকার পরও যারা দরজা খোলে নাই, যারা অগ্নিসন্ত্রাস চালায়, মানুষের ওপর হামলা চালায় তাদের সাথে আলোচনা করে কি হবে, সেটি হচ্ছে বড় প্রশ্ন।’