ঢাকা ০৩:৫০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

প্রার্থিতা ফিরে পেতে হাইকোর্টে যাবেন জাহাঙ্গীর

Reporter Name
  • Update Time : ০৭:৩৬:০৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ মে ২০২৩
  • / ১২০ Time View

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম আপিলেও মনোনয়ন ফিরে পাননি। এবার প্রার্থিতা ফিরে পেতে তিনি হাইকোর্টে যাবেন বলে জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৪ মে) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করে জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার যে আদেশ দিয়েছেন, সেটার বিপক্ষে রোববার উচ্চ আদালতে ( হাইকোর্টে) যাব। সেখানে আপিল করব।’

জিসিসির রিটার্নিং কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা বিভাগীয় কমিশন কার্যালয়ে জাহাঙ্গীর আলমের আপিলের শুনানি হয়। পরে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার মো. সাবিরুল ইসলাম তার আবেদন নাকচ করেন।

তিনি বলেন, ‘গত মঙ্গলবার বাছাইয়ে বাদ পড়া মোট সাতজন প্রার্থী মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল করেন। তাদের মধ্যে জাহাঙ্গীর আলম, একজন সংরক্ষিত কাউন্সিলর ও পাঁচজন সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ছিলেন।’

আপিলের শুনানিতে দুজন আইনজীবীসহ জাহাঙ্গীর আলম নিজে উপস্থিত ছিলেন। শুনানিতে তারা পুনঃতফসিলিকরণের জন্য টাকা জমা দেওয়া এবং জামিনদার খেলাপি হয় না বলে দাবি করেন। কিন্তু শুনানিতে উপস্থিত বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিনিধি জানান, আপিলকারীরা ব্যাংকের আইন অনুযায়ী এখনও ঋণখেলাপি। জাহাঙ্গীর আলম যে প্রতিষ্ঠানের ঋণের জামিনদার, সে ঋণ এখনও পুনঃতফসিলিকরণ হয়নি।

এ সময় ইসির পক্ষ থেকে জানানো হয়, জাহাঙ্গীর আলম মনোনয়নপত্র জমাদানের সময় ঋণখেলাপি ছিলেন। তাই পরে টাকা জমা দিলেও তিনি খেলাপি।

উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার সাবিরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর আলমের মনোনয়ন বাতিল করে রিটার্নিং কর্মকর্তার দেওয়া আদেশ বহাল রাখেন।

Please Share This Post in Your Social Media

প্রার্থিতা ফিরে পেতে হাইকোর্টে যাবেন জাহাঙ্গীর

Update Time : ০৭:৩৬:০৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ মে ২০২৩

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম আপিলেও মনোনয়ন ফিরে পাননি। এবার প্রার্থিতা ফিরে পেতে তিনি হাইকোর্টে যাবেন বলে জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৪ মে) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করে জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার যে আদেশ দিয়েছেন, সেটার বিপক্ষে রোববার উচ্চ আদালতে ( হাইকোর্টে) যাব। সেখানে আপিল করব।’

জিসিসির রিটার্নিং কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা বিভাগীয় কমিশন কার্যালয়ে জাহাঙ্গীর আলমের আপিলের শুনানি হয়। পরে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার মো. সাবিরুল ইসলাম তার আবেদন নাকচ করেন।

তিনি বলেন, ‘গত মঙ্গলবার বাছাইয়ে বাদ পড়া মোট সাতজন প্রার্থী মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল করেন। তাদের মধ্যে জাহাঙ্গীর আলম, একজন সংরক্ষিত কাউন্সিলর ও পাঁচজন সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ছিলেন।’

আপিলের শুনানিতে দুজন আইনজীবীসহ জাহাঙ্গীর আলম নিজে উপস্থিত ছিলেন। শুনানিতে তারা পুনঃতফসিলিকরণের জন্য টাকা জমা দেওয়া এবং জামিনদার খেলাপি হয় না বলে দাবি করেন। কিন্তু শুনানিতে উপস্থিত বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিনিধি জানান, আপিলকারীরা ব্যাংকের আইন অনুযায়ী এখনও ঋণখেলাপি। জাহাঙ্গীর আলম যে প্রতিষ্ঠানের ঋণের জামিনদার, সে ঋণ এখনও পুনঃতফসিলিকরণ হয়নি।

এ সময় ইসির পক্ষ থেকে জানানো হয়, জাহাঙ্গীর আলম মনোনয়নপত্র জমাদানের সময় ঋণখেলাপি ছিলেন। তাই পরে টাকা জমা দিলেও তিনি খেলাপি।

উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার সাবিরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর আলমের মনোনয়ন বাতিল করে রিটার্নিং কর্মকর্তার দেওয়া আদেশ বহাল রাখেন।