ঢাকা ০৩:৫৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নীলফামারীতে সম্পত্তি বেদখলের পায়তারা, দফায় দফায় বাড়িঘর ভাংচুর

আল-আমিন, নীলফামারী
  • Update Time : ০৮:৫২:১১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ জুন ২০২৩
  • / ৩২২ Time View

নীলফামারী সদর উপজেলার টুপামারী ইউনিয়নের দুহুলী পাড়া এলাকার মোঃ জয়নাল আবেদীনের সম্পত্তি বেদখলের উদ্দ্যেশে বাড়ি ঘর ভাংচুর ও দফায় দফায় হামলার ঘটনা ঘটেছে।

দুর্বৃত্তের হামলার শিকার হয়ে পরিবারের নিরাপত্তা, সম্পত্তি ফেরত ও হামলাকারীদের উপর্যুক্ত শাস্তির দাবী নিয়ে সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মোঃ জয়নাল আবেদীন। তিনি এলাকার মৃত যতীন্দ্র নাথ রায়ের ছেলে।

দুর্বৃত্তরা হলেন, টুপামারী নাপিতপাড়া এলাকার শ্রী পরেশ চন্দ্র রায় (৪৫), শ্রী ললিত চন্দ্র রায় (৬৫), শ্রী নরেশ চন্দ্র রায় (৫৮), শ্রী হিরা লাল রায় (৪২), শ্রী গোপাল চন্দ্র রায় (৩৬)। তারা সকলে মৃত যতীন্দ্র নাথ রায়ের ছেলে। এছাড়াও শ্রী ললিত চন্দ্র রায়ের স্ত্রী শ্রীমতি রানী (৫০) এবং দুই ছেলে শ্রী দীপক চন্দ্র রায় (২৫) ও শ্রী সুজন চন্দ্র রায় (২২), শ্রী পরেশ চন্দ্র রায়ের স্ত্রী শ্রীমতি মাহা রানী রায় (৩৮), শ্রী নরেশ চন্দ্র রায়ের স্ত্রী শ্রীমতি ছবি রানী (৪৬), শ্রী গোপাল চন্দ্র রায়ের স্ত্রী শ্রীমতি দেবী রানী (৩৫) এবং দুহুলীপাড়া এলাকারা আবুল কালাম আজাদের ছেলে মোঃ মাহামুদুল ইসলাম ওরফেঅ মাসুম।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, নীলফামারী সদর থানার সুখধন মৌজার জে,এল নং-১৯, খতিয়ান নং ১৮৯, দাগ নং- ১৭৪০ এর জমির পরিমান ৩০ শতকের মধ্যে ১০ শতক ও দাগ নং-৩৪২ এর মধ্যে ০৫ শতক মিলে মোট ১৫ শতক সম্পত্তির মালিক মোঃ জয়নাল আবেদীন।

তার ওই সম্পত্তি বেদখলের উদ্দেশ্যে একাধিকবার বেআইনিভাবে অনুপ্রবেশ করে বেড়াচাটি ভাংচুর ও ক্ষয়ক্ষতি করেন দুর্বিত্তরা।

এ ঘটনায় আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেন জয়নাল আবেদীন। যার মামলা নং- সি.আর ৩৫৮/২২ যাহা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

মামলার বিষয় জানতে পেরে পূনরায় বিগত ২৮/০৫/২০২২ ইং তারিখে তফশীল বর্ণিত সম্পত্তিতে অনুপ্রবেশ করে বেড়াচাটি ও সিমেন্টের পিলার ভেঙে প্রায় ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ক্ষতি সাধন করেন তারা। পরে দিশ কূল না পেয়ে আবারও তাদের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালত সদর মোকামে মামলা আনায়ন করেন তিনি। যাহার মামলা নং- পিটিশন -১৫৪/২০২২ বিচারধীন রয়েছে। তদুপরি দুর্বিত্তরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে গায়ের জোরে জয়নাল আবেদীনকে প্রাণে মারিয়া বর্নিত সম্পত্তি বেদখল করতে জোর প্রচেষ্টা চালায়। একপর্যায়ে বুধবার ৮ জুন/২০২৩ গভীর রাতে দেশীও অস্ত্র নিয়ে শ্রী পরেশ চন্দ্র রায় ও তার দলবল ওই সম্পত্তির চারদিকে থাকা বেড়াচাটি, ৩ টি ঘর, পিডিবি বিদ্যুৎ সংযোগসহ ১৫০ টি ইউক্যালেকটার গাছ কেটে ভাংচুর করে। এতে প্রায় ১০ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন হয়।

এ বিষয়ে জয়নাল আবেদীনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, দুর্বৃত্তরা অত্যান্ত দূর্দান্ত প্রকৃতির। তাদের দ্বারা যে কোন সময় আমার ও আমার পরিবারের জান মাল সম্পত্তির আশু শান্তিভঙ্গের আশংকা আছে। আমি তাদের উপর্যুক্ত শাস্তি কামনা করি।

জানতে চাইলে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ খান মোঃ সাহরিয়ার বলেন, আমি মৌখিলভাবে বিষয়টি সম্পকে অবগত হয়েছি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

নীলফামারীতে সম্পত্তি বেদখলের পায়তারা, দফায় দফায় বাড়িঘর ভাংচুর

Update Time : ০৮:৫২:১১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ জুন ২০২৩

নীলফামারী সদর উপজেলার টুপামারী ইউনিয়নের দুহুলী পাড়া এলাকার মোঃ জয়নাল আবেদীনের সম্পত্তি বেদখলের উদ্দ্যেশে বাড়ি ঘর ভাংচুর ও দফায় দফায় হামলার ঘটনা ঘটেছে।

দুর্বৃত্তের হামলার শিকার হয়ে পরিবারের নিরাপত্তা, সম্পত্তি ফেরত ও হামলাকারীদের উপর্যুক্ত শাস্তির দাবী নিয়ে সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মোঃ জয়নাল আবেদীন। তিনি এলাকার মৃত যতীন্দ্র নাথ রায়ের ছেলে।

দুর্বৃত্তরা হলেন, টুপামারী নাপিতপাড়া এলাকার শ্রী পরেশ চন্দ্র রায় (৪৫), শ্রী ললিত চন্দ্র রায় (৬৫), শ্রী নরেশ চন্দ্র রায় (৫৮), শ্রী হিরা লাল রায় (৪২), শ্রী গোপাল চন্দ্র রায় (৩৬)। তারা সকলে মৃত যতীন্দ্র নাথ রায়ের ছেলে। এছাড়াও শ্রী ললিত চন্দ্র রায়ের স্ত্রী শ্রীমতি রানী (৫০) এবং দুই ছেলে শ্রী দীপক চন্দ্র রায় (২৫) ও শ্রী সুজন চন্দ্র রায় (২২), শ্রী পরেশ চন্দ্র রায়ের স্ত্রী শ্রীমতি মাহা রানী রায় (৩৮), শ্রী নরেশ চন্দ্র রায়ের স্ত্রী শ্রীমতি ছবি রানী (৪৬), শ্রী গোপাল চন্দ্র রায়ের স্ত্রী শ্রীমতি দেবী রানী (৩৫) এবং দুহুলীপাড়া এলাকারা আবুল কালাম আজাদের ছেলে মোঃ মাহামুদুল ইসলাম ওরফেঅ মাসুম।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, নীলফামারী সদর থানার সুখধন মৌজার জে,এল নং-১৯, খতিয়ান নং ১৮৯, দাগ নং- ১৭৪০ এর জমির পরিমান ৩০ শতকের মধ্যে ১০ শতক ও দাগ নং-৩৪২ এর মধ্যে ০৫ শতক মিলে মোট ১৫ শতক সম্পত্তির মালিক মোঃ জয়নাল আবেদীন।

তার ওই সম্পত্তি বেদখলের উদ্দেশ্যে একাধিকবার বেআইনিভাবে অনুপ্রবেশ করে বেড়াচাটি ভাংচুর ও ক্ষয়ক্ষতি করেন দুর্বিত্তরা।

এ ঘটনায় আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেন জয়নাল আবেদীন। যার মামলা নং- সি.আর ৩৫৮/২২ যাহা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

মামলার বিষয় জানতে পেরে পূনরায় বিগত ২৮/০৫/২০২২ ইং তারিখে তফশীল বর্ণিত সম্পত্তিতে অনুপ্রবেশ করে বেড়াচাটি ও সিমেন্টের পিলার ভেঙে প্রায় ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ক্ষতি সাধন করেন তারা। পরে দিশ কূল না পেয়ে আবারও তাদের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালত সদর মোকামে মামলা আনায়ন করেন তিনি। যাহার মামলা নং- পিটিশন -১৫৪/২০২২ বিচারধীন রয়েছে। তদুপরি দুর্বিত্তরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে গায়ের জোরে জয়নাল আবেদীনকে প্রাণে মারিয়া বর্নিত সম্পত্তি বেদখল করতে জোর প্রচেষ্টা চালায়। একপর্যায়ে বুধবার ৮ জুন/২০২৩ গভীর রাতে দেশীও অস্ত্র নিয়ে শ্রী পরেশ চন্দ্র রায় ও তার দলবল ওই সম্পত্তির চারদিকে থাকা বেড়াচাটি, ৩ টি ঘর, পিডিবি বিদ্যুৎ সংযোগসহ ১৫০ টি ইউক্যালেকটার গাছ কেটে ভাংচুর করে। এতে প্রায় ১০ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন হয়।

এ বিষয়ে জয়নাল আবেদীনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, দুর্বৃত্তরা অত্যান্ত দূর্দান্ত প্রকৃতির। তাদের দ্বারা যে কোন সময় আমার ও আমার পরিবারের জান মাল সম্পত্তির আশু শান্তিভঙ্গের আশংকা আছে। আমি তাদের উপর্যুক্ত শাস্তি কামনা করি।

জানতে চাইলে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ খান মোঃ সাহরিয়ার বলেন, আমি মৌখিলভাবে বিষয়টি সম্পকে অবগত হয়েছি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।