ঢাকা ০৪:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক

নদী ভাঙনে রাতারাতিই কাজ করা যায়না

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি
  • Update Time : ১১:৩৩:৪৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ মে ২০২৩
  • / ৬৬ Time View

কুড়িগ্রামে নদী ভাঙনের শিকার বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেছেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক। এসময় তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, নদী ভাঙন হলে আমরা কাজ করবো। কিন্তু বললেই রাতারাতি কাজ করা যাবে না। তবে সরকার ভাঙন কবলিত এলাকাগুলোর দিকে খেয়াল রাখছে।

রোববার জেলার চিলমারী উপজেলার ব্রহ্মপুত্র বেষ্টিত কচাকোলা এলাকা পরিদর্শন করে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, অতীতে নদী ভাঙনে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের কেউ এগিয়ে না এলেও বর্তমান সরকার খুব ভালোভাবে খেয়াল রাখছে। করোনার সময় প্রণোদনা দেওয়ার পরও বিভিন্ন প্রকল্প চলমান আছে। তবে তা ধীরগতিতে চললেও বন্ধ করা হয়নি।

এসময় তার সাথে সফর সঙ্গী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসন, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মো. নুরুল আলম, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পশ্চিম রিজিওন) রমজান আলী, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল আরীফ, পুলিশ সুপার আল আসাদ মো. মাহফুজুল ইসলাম, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আমান উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু প্রমুখ।

চিলমারীর কাচকোল নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শন ও পথসভা শেষে বেলা তিনটার দিকে তিনি স্পিডবোট যোগে গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ, কুড়িগ্রামের রৌমার-রাজিবপুরে নদী ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক

নদী ভাঙনে রাতারাতিই কাজ করা যায়না

Update Time : ১১:৩৩:৪৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ মে ২০২৩

কুড়িগ্রামে নদী ভাঙনের শিকার বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেছেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক। এসময় তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, নদী ভাঙন হলে আমরা কাজ করবো। কিন্তু বললেই রাতারাতি কাজ করা যাবে না। তবে সরকার ভাঙন কবলিত এলাকাগুলোর দিকে খেয়াল রাখছে।

রোববার জেলার চিলমারী উপজেলার ব্রহ্মপুত্র বেষ্টিত কচাকোলা এলাকা পরিদর্শন করে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, অতীতে নদী ভাঙনে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের কেউ এগিয়ে না এলেও বর্তমান সরকার খুব ভালোভাবে খেয়াল রাখছে। করোনার সময় প্রণোদনা দেওয়ার পরও বিভিন্ন প্রকল্প চলমান আছে। তবে তা ধীরগতিতে চললেও বন্ধ করা হয়নি।

এসময় তার সাথে সফর সঙ্গী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসন, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মো. নুরুল আলম, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পশ্চিম রিজিওন) রমজান আলী, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল আরীফ, পুলিশ সুপার আল আসাদ মো. মাহফুজুল ইসলাম, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আমান উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু প্রমুখ।

চিলমারীর কাচকোল নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শন ও পথসভা শেষে বেলা তিনটার দিকে তিনি স্পিডবোট যোগে গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ, কুড়িগ্রামের রৌমার-রাজিবপুরে নদী ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন।