ঢাকা ০৫:২২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
দফায় দফায় হামলা ভাংচুর আহত ১৫

টঙ্গীতে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় ঘর ছাড়া অর্ধশতাধিক

জাহাঙ্গীর আকন্দ
  • Update Time : ১১:২১:২৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ মে ২০২৩
  • / ৭৯ Time View

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে টঙ্গী শিল্পাঞ্চল। বিভিন্ন ওয়ার্ডে পরাজিত প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের উপর দফায় দফায় চলছে হামলা ভাঙচুর।

নগরীর ৫৭ নং ওয়ার্ডের টঙ্গী বাজার হাজীর মাজার বস্তি এলাকায় নির্বাচনের পরের দিন সকাল থেকে শনিবার রাত পর্যন্ত পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের উপর দফায় দফায় মারধর, হামলা, ভাংচুর ও হুমকির ঘটনা ঘটেছে। হামলার অন্তত ১৫ জন নারী পুরুষ আহত হয়েছেন। আতঙ্কে ঘরছাড়া হয়েছেন অর্ধশতাধিক নারী-পুরুষ।

এ ঘটনায় গত দুইদিনে পৃথক নয়টি অভিযোগ হয়েছে টঙ্গী পূর্ব ও পশ্চিম থানায়। বর্তমানে এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

আহতরা হলেন, মিনারা বেগম (৩০), আবু তালেব (৩৫), আলমগীর (৫৩), মোস্তফা (১৩), সালমা (২৫), রাহেলা (৩০), হনুফা (৪০), আছিয়া (৫০), সবুজা বেগম (৩০), সখিনা বেগম (৫০) ও কাজলী বেগম (৩৫) সহ অন্তত ১৫জন। আহতরা সকলে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মী সমর্থক।

অভিযুক্তরা হলেন, আমিনুল ইসলাম স্বপন (৩৫), ইসমাইল হোসেন সিরাজী (৩৫), নুর মোহাম্মদ (২৮), মোমেন (৫৫), ছিদ্দিকুর রহমান ডুবলী (৫০), সালাম শেখ (৫৫), মদন (৫০), গেদা বাবু (৩০). রুুবেল (৩০), বাবুল ওরফে বোগলা (৩৮). আকলী (৩০), লাইলী (২৮), জুসনী (৩০), জহুরা (২৮) সহ অর্ধশতাধিক। অভিযুক্তরা সকলেই বিজয়ী কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মী সমর্থক।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায, গাজীপুর মহানগরের ৫৭ নং ওয়ার্ড টঙ্গী বাজার এলাকা। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হওয়া সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে এই ওয়ার্ড থেকে সাধারণ কাউন্সিলর হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন টিফিনক্যারিয়ার প্রতীকে গিয়াস উদ্দিন সরকার ও মিষ্টি কুমড়া প্রতীকে শেখ মো. নজরুল ইসলাম। নির্বাচনে বিজয়ী হন টিফিনক্যারিয়ার প্রতিকের প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন সরকার। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে প্রতিপক্ষের কর্মী সমর্থকদের উপর দফায় দফায় হামলা-ভাঙচুর ও হুমকী ধামকীর অভিযোগ ওঠেছে গিয়াস উদ্দিন সরকারের কর্মীদের বিরুদ্ধে। অভিযুক্তদের হামলায় পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থীর কমপক্ষে ১৫ জন নারী পুরুষ আহত হয়। আহতরা টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নেয়। বস্তির অনেকের ঘরে তালা লাগিয়ে দেয় গিয়াস উদ্দিন সরকারের কর্মীরা। তাদের অব্যাহত হুমকী ও মারধরের ভয়ে বহু নারী পুরুষ পালিয়ে রয়েছে।

টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শাহ আলম বলেন, এ ঘটনায় থানায় একাধিক অভিযোগ হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

টঙ্গীতে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা নারী কাউন্সিলর প্রার্থীসহ আহত ১০

Please Share This Post in Your Social Media

দফায় দফায় হামলা ভাংচুর আহত ১৫

টঙ্গীতে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় ঘর ছাড়া অর্ধশতাধিক

Update Time : ১১:২১:২৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ মে ২০২৩

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে টঙ্গী শিল্পাঞ্চল। বিভিন্ন ওয়ার্ডে পরাজিত প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের উপর দফায় দফায় চলছে হামলা ভাঙচুর।

নগরীর ৫৭ নং ওয়ার্ডের টঙ্গী বাজার হাজীর মাজার বস্তি এলাকায় নির্বাচনের পরের দিন সকাল থেকে শনিবার রাত পর্যন্ত পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের উপর দফায় দফায় মারধর, হামলা, ভাংচুর ও হুমকির ঘটনা ঘটেছে। হামলার অন্তত ১৫ জন নারী পুরুষ আহত হয়েছেন। আতঙ্কে ঘরছাড়া হয়েছেন অর্ধশতাধিক নারী-পুরুষ।

এ ঘটনায় গত দুইদিনে পৃথক নয়টি অভিযোগ হয়েছে টঙ্গী পূর্ব ও পশ্চিম থানায়। বর্তমানে এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

আহতরা হলেন, মিনারা বেগম (৩০), আবু তালেব (৩৫), আলমগীর (৫৩), মোস্তফা (১৩), সালমা (২৫), রাহেলা (৩০), হনুফা (৪০), আছিয়া (৫০), সবুজা বেগম (৩০), সখিনা বেগম (৫০) ও কাজলী বেগম (৩৫) সহ অন্তত ১৫জন। আহতরা সকলে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মী সমর্থক।

অভিযুক্তরা হলেন, আমিনুল ইসলাম স্বপন (৩৫), ইসমাইল হোসেন সিরাজী (৩৫), নুর মোহাম্মদ (২৮), মোমেন (৫৫), ছিদ্দিকুর রহমান ডুবলী (৫০), সালাম শেখ (৫৫), মদন (৫০), গেদা বাবু (৩০). রুুবেল (৩০), বাবুল ওরফে বোগলা (৩৮). আকলী (৩০), লাইলী (২৮), জুসনী (৩০), জহুরা (২৮) সহ অর্ধশতাধিক। অভিযুক্তরা সকলেই বিজয়ী কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মী সমর্থক।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায, গাজীপুর মহানগরের ৫৭ নং ওয়ার্ড টঙ্গী বাজার এলাকা। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হওয়া সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে এই ওয়ার্ড থেকে সাধারণ কাউন্সিলর হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন টিফিনক্যারিয়ার প্রতীকে গিয়াস উদ্দিন সরকার ও মিষ্টি কুমড়া প্রতীকে শেখ মো. নজরুল ইসলাম। নির্বাচনে বিজয়ী হন টিফিনক্যারিয়ার প্রতিকের প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন সরকার। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে প্রতিপক্ষের কর্মী সমর্থকদের উপর দফায় দফায় হামলা-ভাঙচুর ও হুমকী ধামকীর অভিযোগ ওঠেছে গিয়াস উদ্দিন সরকারের কর্মীদের বিরুদ্ধে। অভিযুক্তদের হামলায় পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থীর কমপক্ষে ১৫ জন নারী পুরুষ আহত হয়। আহতরা টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নেয়। বস্তির অনেকের ঘরে তালা লাগিয়ে দেয় গিয়াস উদ্দিন সরকারের কর্মীরা। তাদের অব্যাহত হুমকী ও মারধরের ভয়ে বহু নারী পুরুষ পালিয়ে রয়েছে।

টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শাহ আলম বলেন, এ ঘটনায় থানায় একাধিক অভিযোগ হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

টঙ্গীতে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা নারী কাউন্সিলর প্রার্থীসহ আহত ১০