ঢাকা ০৪:৪১ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৪ জুন ২০২৩, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

জাহাঙ্গীর আলম এর সংবাদ সম্মেলন

Reporter Name
  • Update Time : ০৬:২৭:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ মে ২০২৩
  • / ৪৬৫ Time View

জাহাঙ্গীর আকন্দ : বহুল আলোচিত গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমকে দ্বিতীয় বারের মত স্থায়ী বহিষ্কারের আদেশ দিয়েছে আওয়ামীলীগ।

আমার প্রতি ন্যায় বিচার করা হয় না। প্রধানমন্ত্রীকে ভুল বোঝানো হয়েছে। আমি দেশের বাইরে ছিলাম। এসে দেখি আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে। যড়যন্ত্রের বিষয়ে দলের সিনিয়র নেতাকর্মীদের জানিয়েছিলাম।তার কেউ প্রধানমন্ত্রীকে বলেছেন কিনা আমার জানা নেই। আমাকেও প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌছাতে দেয়া হয় নি। আমি গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছয় বছর ছিলাম। ছাত্র জীবনে আমি ছাত্রলীগ পরে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করেছি।

২০১৮সালে আমি নৌকা প্রতিকে সিটি মেয়র পদে নির্বাচন করে বিজয়ী হই। তারপর তিন বছর মেয়রের দায়িত্ব পালন কালে অন্য জেলার নেতাকর্মীদের দিয়ে অভিযোগ জানিয়ে মেয়র পদটি স্থগিত করা হয়েছে।

আমার মা একজন সংগ্রামী নারী। তিনি স্বতন্ত্র মেয়র পদে টেবিল ঘড়ি মার্কায় নির্বাচন করছেন ।আমি আমার মায়ের ডাকে সাড়া দিয়ে মায়ের পাশে রয়েছি। নির্বাচনকে বাধা গ্রস্থ করতে পেশি শক্তি ব্যবহার করে আমার নেতাকর্মীদের হুমকি দেয়া হচ্ছে।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীর এসেছেন। আপনারা আপনারা দাওয়াত খেয়ে যান নেতা কর্মীদেরকে হুমকি দিবেন না।

যারা টেবিল ঘড়ি মার্কা নিয়ে কাজ করছেন তাদেরকে প্রশাসনের মাধ্যমে বাধাগ্রস্থ করা হচ্ছে।এবার আজমত উল্লা খানকে দল মনোনয়ন দিয়েছে।তিনি আমার ক্ষতি(ষড়যন্ত্র) করার মধ্যে জড়িত ছিলেন।তাই আমার মা নির্বাচনে দাঁড়িয়েছেন।তিনি আজমত উল্লাহ নির্বাচনে যেতে নিষেধ করেছেন।আমি আমার মায়ের পাশে আছি।

আজ আমার রাষ্ট্রের সকল ক্ষমতা চলে গেছে,নেতাকর্মীরা ও চলে গেছে কিন্তু আমার মা আমার পাশে আছেন। তবু আমার নেতাকর্মীদেরকে কেন অত্যাচার করা হচ্ছে?

আমিতো একজন আওয়ামী লীগের সমর্থক। আমাকে বহিষ্কার করতে কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাকর্মী কেন প্রয়োজন?

পূর্বে আমার দলীয় পথ ছিল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে ছিলাম আমাকে দল থেকে এভাবে বের করে দেয়াটা দলের জন্য কতটুকু ভালো হয়েছে।

আমাকে কথায় কথায় লোকের সাথে মিশিয়ে দেয়া হয়। আমার মা নির্বাচন করছেন,মা আমাকে তার পাশে থাকতে বলেছেন।আমি যদি মায়ের পাশে না থাকি তাহলে রক্তের সাথে বেইমানি করা হয়।

আমিতো একজন আওয়ামী লীগের সমর্থক।আমাকে বহিষ্কার করতে কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাকর্মী কেন প্রয়োজন? পূর্বে আমার দলীয় পথ ছিল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে ছিলাম আমাকে দল থেকে এভাবে বের করে দেয়াটা দলের জন্য কতটুকু ভালো হয়েছে।

আদেশের পরদিন মঙ্গলবার দুপুরে গাজীপুরের ছয়য়দান এলাকায় নিজবাস ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব বলেন তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

জাহাঙ্গীর আলম এর সংবাদ সম্মেলন

Update Time : ০৬:২৭:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ মে ২০২৩

জাহাঙ্গীর আকন্দ : বহুল আলোচিত গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমকে দ্বিতীয় বারের মত স্থায়ী বহিষ্কারের আদেশ দিয়েছে আওয়ামীলীগ।

আমার প্রতি ন্যায় বিচার করা হয় না। প্রধানমন্ত্রীকে ভুল বোঝানো হয়েছে। আমি দেশের বাইরে ছিলাম। এসে দেখি আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে। যড়যন্ত্রের বিষয়ে দলের সিনিয়র নেতাকর্মীদের জানিয়েছিলাম।তার কেউ প্রধানমন্ত্রীকে বলেছেন কিনা আমার জানা নেই। আমাকেও প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌছাতে দেয়া হয় নি। আমি গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছয় বছর ছিলাম। ছাত্র জীবনে আমি ছাত্রলীগ পরে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করেছি।

২০১৮সালে আমি নৌকা প্রতিকে সিটি মেয়র পদে নির্বাচন করে বিজয়ী হই। তারপর তিন বছর মেয়রের দায়িত্ব পালন কালে অন্য জেলার নেতাকর্মীদের দিয়ে অভিযোগ জানিয়ে মেয়র পদটি স্থগিত করা হয়েছে।

আমার মা একজন সংগ্রামী নারী। তিনি স্বতন্ত্র মেয়র পদে টেবিল ঘড়ি মার্কায় নির্বাচন করছেন ।আমি আমার মায়ের ডাকে সাড়া দিয়ে মায়ের পাশে রয়েছি। নির্বাচনকে বাধা গ্রস্থ করতে পেশি শক্তি ব্যবহার করে আমার নেতাকর্মীদের হুমকি দেয়া হচ্ছে।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীর এসেছেন। আপনারা আপনারা দাওয়াত খেয়ে যান নেতা কর্মীদেরকে হুমকি দিবেন না।

যারা টেবিল ঘড়ি মার্কা নিয়ে কাজ করছেন তাদেরকে প্রশাসনের মাধ্যমে বাধাগ্রস্থ করা হচ্ছে।এবার আজমত উল্লা খানকে দল মনোনয়ন দিয়েছে।তিনি আমার ক্ষতি(ষড়যন্ত্র) করার মধ্যে জড়িত ছিলেন।তাই আমার মা নির্বাচনে দাঁড়িয়েছেন।তিনি আজমত উল্লাহ নির্বাচনে যেতে নিষেধ করেছেন।আমি আমার মায়ের পাশে আছি।

আজ আমার রাষ্ট্রের সকল ক্ষমতা চলে গেছে,নেতাকর্মীরা ও চলে গেছে কিন্তু আমার মা আমার পাশে আছেন। তবু আমার নেতাকর্মীদেরকে কেন অত্যাচার করা হচ্ছে?

আমিতো একজন আওয়ামী লীগের সমর্থক। আমাকে বহিষ্কার করতে কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাকর্মী কেন প্রয়োজন?

পূর্বে আমার দলীয় পথ ছিল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে ছিলাম আমাকে দল থেকে এভাবে বের করে দেয়াটা দলের জন্য কতটুকু ভালো হয়েছে।

আমাকে কথায় কথায় লোকের সাথে মিশিয়ে দেয়া হয়। আমার মা নির্বাচন করছেন,মা আমাকে তার পাশে থাকতে বলেছেন।আমি যদি মায়ের পাশে না থাকি তাহলে রক্তের সাথে বেইমানি করা হয়।

আমিতো একজন আওয়ামী লীগের সমর্থক।আমাকে বহিষ্কার করতে কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাকর্মী কেন প্রয়োজন? পূর্বে আমার দলীয় পথ ছিল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে ছিলাম আমাকে দল থেকে এভাবে বের করে দেয়াটা দলের জন্য কতটুকু ভালো হয়েছে।

আদেশের পরদিন মঙ্গলবার দুপুরে গাজীপুরের ছয়য়দান এলাকায় নিজবাস ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব বলেন তিনি।