ঢাকা ০৬:০৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
বিমানবন্দর-টঙ্গী থেকে ধারালো অস্ত্রসহ ৮ ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার কিশোরগঞ্জে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্কুলের উন্নয়ন খাতের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ সাংবাদিককে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা ও গ্র্যাজুয়েট হতে হবে বেনজীরের আরও ১১৩ দলিলের সম্পদ ও গুলশানের ৪টি ফ্ল্যাট জব্দের আদেশ সুজানগরে গৃহবধূকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে কাউকে ছাড় দেব না : ইসি রাশেদা ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে একটি বাড়ি থেকে ১২ কোটি রুপির স্বর্ণ জব্দ সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণের আহ্বান প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রীর ঝালকাঠিতে রেমালের প্রভাবে নদীর পানি বেড়েছে ২১৭ নেতাকে বহিষ্কার করল বিএনপি

জবিতে বিশ্ব শান্তি রক্ষা ও যুদ্ধ অবসান প্রকল্পের সনদ প্রদান

মো রাকিব হাসান, জবি প্রতিনিধি;
  • Update Time : ০৪:০৫:৫৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৮ জুন ২০২৩
  • / ১১৫ Time View

দক্ষিণ কোরিয়া ভিত্তিক সংগঠন Heavenly Culture, World Peace, Restoration of Light (HWPL) ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যান্ড ল ক্লাবের যৌথ উদ্যোগে Declaration of Peace and Cessation of War (DPCW) এর উপর তিন মাস ব্যাপী একটি আলোচনা প্রকল্পের উপর সনদ পেয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ জন শিক্ষার্থী।

শনিবার(১৭) প্রকল্পে অংশগ্রহনকারী শিক্ষার্থীদেরকে সনদ প্রদানের মাধ্যমে প্রকল্পটি সম্পন্ন হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. এস এম মাসুম বিল্লাহ, ভারতের বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শৈলেন্দ্র কুমার গুপ্ত ও ভারতীয় সুপ্রীম কোর্টের আইনিজীবী মি. বিজেন্দ্র কুমার পাল। এবং অনুষ্ঠান টি পরিচালনা করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমি ব্যবস্থাপনা ও আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও ল্যান্ড ল ক্লাবের পরিচালক রাফেয়া খাতুন।

তিন মাস ব্যাপী এ প্রকল্পটির মূল উদ্দেশ্য হলো DPCW পাঠ্যক্রমের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী শান্তি রক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরা। পাশাপাশি যুদ্ধের অবসান ও বিশ্ব শান্তি রক্ষায় আন্তর্জাতিক নিয়ম তৈরীর মাধ্যমে শান্তি রক্ষায় অবদান রাখা।

ল্যান্ড ল ক্লাবের পরিচালক ও প্রকল্পের মেন্টর সহযোগী অধ্যাপক রাফেয়া খাতুন বলেন, এ প্রকল্পে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা হবেন শান্তির দূত যারা অস্থির পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করবে এবং অন্যদেরকেও কাজ করতে উৎসাহী করে তুলবে। মনব কল্যানে যুদ্ধের পরিসমাপ্তি অনিবার্য। যুদ্ধে কোনো পক্ষই জয়ী হয় না, যেটা হয় তা হলো কোনো পক্ষের ক্ষতি একটু বেশি হয় আর কোনো পক্ষের একটু কম।

জানা যায়, প্রকল্পটিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমি ব্যবস্থাপনা ও আইন বিভাগের দশজন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করেন। যারা শান্তি অধিকারের উপর মোট পাঁচটি সেশনের মাধ্যমে DPCW এর নিবন্ধ উপস্থাপন ও আলোচনা করেন। পাশাপাশি বিশ্ব শান্তি রক্ষায় মতামত উপস্থাপন করেন।

প্রকল্পে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থী সুয়েনা আক্তার বলেন, এই প্রকল্পের মূল লক্ষ্য হল একটি শান্তিপূর্ণ বিশ্ব প্রতিষ্ঠা করা। প্রকল্পটি আমাদেরকে আন্তর্জাতিক দৃষ্টিকোণ থেকে একটি সমাজে যুদ্ধ, সংঘাত, বিরোধ নিষ্পত্তি এবং শান্তি বাস্তবায়ন সম্পর্কে সচেতন করেছে। আশা করি সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য প্রকল্প থেকে প্রাপ্ত জ্ঞান আমরা কাজে লাগাতে পারব।

অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া সকল শিক্ষার্থীদের মধ্যে সনদ প্রদান করা হয় এবং সেরা দুইজন শিক্ষার্থী বিশেষ সনদ প্রদান করা হয়। এসময় HWPL এর প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন HWPL এর গ্লোবাল ব্রাঞ্চের সদস্য মিসেস লিনা, মিস্টার গোও ও মিসেস গ্লোরিয়া।

প্রসঙ্গত, DPCW হলো International Law Peace Committee (ILPC) কতৃক প্রণীত একটি আন্তর্জাতিক ঘোষণা যা জাতিসংঘের সাধারন সভায় প্রস্তাবনা পর্যায়ে রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

জবিতে বিশ্ব শান্তি রক্ষা ও যুদ্ধ অবসান প্রকল্পের সনদ প্রদান

Update Time : ০৪:০৫:৫৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৮ জুন ২০২৩

দক্ষিণ কোরিয়া ভিত্তিক সংগঠন Heavenly Culture, World Peace, Restoration of Light (HWPL) ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যান্ড ল ক্লাবের যৌথ উদ্যোগে Declaration of Peace and Cessation of War (DPCW) এর উপর তিন মাস ব্যাপী একটি আলোচনা প্রকল্পের উপর সনদ পেয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ জন শিক্ষার্থী।

শনিবার(১৭) প্রকল্পে অংশগ্রহনকারী শিক্ষার্থীদেরকে সনদ প্রদানের মাধ্যমে প্রকল্পটি সম্পন্ন হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. এস এম মাসুম বিল্লাহ, ভারতের বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শৈলেন্দ্র কুমার গুপ্ত ও ভারতীয় সুপ্রীম কোর্টের আইনিজীবী মি. বিজেন্দ্র কুমার পাল। এবং অনুষ্ঠান টি পরিচালনা করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমি ব্যবস্থাপনা ও আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও ল্যান্ড ল ক্লাবের পরিচালক রাফেয়া খাতুন।

তিন মাস ব্যাপী এ প্রকল্পটির মূল উদ্দেশ্য হলো DPCW পাঠ্যক্রমের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী শান্তি রক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরা। পাশাপাশি যুদ্ধের অবসান ও বিশ্ব শান্তি রক্ষায় আন্তর্জাতিক নিয়ম তৈরীর মাধ্যমে শান্তি রক্ষায় অবদান রাখা।

ল্যান্ড ল ক্লাবের পরিচালক ও প্রকল্পের মেন্টর সহযোগী অধ্যাপক রাফেয়া খাতুন বলেন, এ প্রকল্পে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা হবেন শান্তির দূত যারা অস্থির পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করবে এবং অন্যদেরকেও কাজ করতে উৎসাহী করে তুলবে। মনব কল্যানে যুদ্ধের পরিসমাপ্তি অনিবার্য। যুদ্ধে কোনো পক্ষই জয়ী হয় না, যেটা হয় তা হলো কোনো পক্ষের ক্ষতি একটু বেশি হয় আর কোনো পক্ষের একটু কম।

জানা যায়, প্রকল্পটিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমি ব্যবস্থাপনা ও আইন বিভাগের দশজন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করেন। যারা শান্তি অধিকারের উপর মোট পাঁচটি সেশনের মাধ্যমে DPCW এর নিবন্ধ উপস্থাপন ও আলোচনা করেন। পাশাপাশি বিশ্ব শান্তি রক্ষায় মতামত উপস্থাপন করেন।

প্রকল্পে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থী সুয়েনা আক্তার বলেন, এই প্রকল্পের মূল লক্ষ্য হল একটি শান্তিপূর্ণ বিশ্ব প্রতিষ্ঠা করা। প্রকল্পটি আমাদেরকে আন্তর্জাতিক দৃষ্টিকোণ থেকে একটি সমাজে যুদ্ধ, সংঘাত, বিরোধ নিষ্পত্তি এবং শান্তি বাস্তবায়ন সম্পর্কে সচেতন করেছে। আশা করি সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য প্রকল্প থেকে প্রাপ্ত জ্ঞান আমরা কাজে লাগাতে পারব।

অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া সকল শিক্ষার্থীদের মধ্যে সনদ প্রদান করা হয় এবং সেরা দুইজন শিক্ষার্থী বিশেষ সনদ প্রদান করা হয়। এসময় HWPL এর প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন HWPL এর গ্লোবাল ব্রাঞ্চের সদস্য মিসেস লিনা, মিস্টার গোও ও মিসেস গ্লোরিয়া।

প্রসঙ্গত, DPCW হলো International Law Peace Committee (ILPC) কতৃক প্রণীত একটি আন্তর্জাতিক ঘোষণা যা জাতিসংঘের সাধারন সভায় প্রস্তাবনা পর্যায়ে রয়েছে।