ঢাকা ০২:৫৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

চিকলী ওয়াটার পার্কের কিডস্ জোনে হুইল চেয়ার নিয়ে প্রবেশে বাধা

Reporter Name
  • Update Time : ০৩:১৭:১০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ মে ২০২৩
  • / ১৭৮ Time View

কামরুল হাসান টিটু,রংপুর: রংপুর মহানগরীর চিকলী ওয়াটার পার্কে টিকেট কাটার পরও আল আরমান ইয়ানাত নামের বিশেষ চাহিদা সম্পূর্ণ (শারীরিক প্রতিবন্ধী) দশ বছর বয়সী এক শিশুকে কিডস্ জোনে প্রবেশ করতে বাধা দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন শিশুটির অভিভাবক রিজা রহমান।

তার দাবি, চিকলি ওয়াটার পার্কের অভ্যন্তরীণ কিডস্ জোনে তার শিশুকে হুইল চেয়ার নিয়ে প্রবেশে বাধা প্রদান করে সেখানে কর্তব্যরত কর্মচারী। এঘটনায় তার কোমলমতি শিশুকে মানসিকভাবে আঘাতগ্রস্থ করার পাশাপাশি শত শত মানুষের সামনে তাকে হেয় করা হয়েছে।

বুধবার (৩ মে) দুপুরে রংপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে এ অভিযোগ তুলে ধরেন অভিভাবক রিজা রহমান। তিনি চিকলী ওয়াটার পার্কে তার বিশেষ চাহিদা সম্পূর্ণ শিশুকে ঘুরতে নিয়ে গিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছিলেন দাবি করেন।

রিজা রহমান বলেন, গত ২৬ এপ্রিল সন্ধ্যা ৬টার দিকে আমার কন্যাশিশু আল আরমান ইয়ানাতকে তার মানসিক বিকাশের জন্য চিকলী ওয়াটার পার্কে নিয়ে যাই। সেখানে দুটি প্রবেশপথে পৃথক ভাবে টিকিট কেটে ভিতরে প্রবেশের পর পার্কের অভ্যন্তরীণ কিডস্ জোনে প্রবেশের জন্য ১০০ টাকার আলাদা টিকিট কাটতে হয়। কিন্তু কিডস্ জোনের প্রবেশপথে কর্তব্যরত কর্মচারি টিকিট দেখানোর পর হুইল চেয়ারসহ আমার শিশুকে প্রবেশে বাধা দেয়। পরে কর্তৃপক্ষ থেকে জানানো হয় সেখানে হুইল চেয়ার নিয়ে প্রবেশের অনুমতি নেই।

তিনি আরও বলেন, আমি তাদের অনুরোধ করে বলেছি হুইল চেয়ার নিয়ে প্রবেশ করলে অন্য কারো কোনো সমস্যা হবে না। কিন্তু কর্তব্যরতরা আমার কথা শুনেননি। বরং শত শত মানুষের সামনে আমার কোমলমতি শিশুকে হেয় করা হয়েছে। আমার শিশু মানসিকভাবে আঘাতগ্রস্থ হয়েছে। আমি সেখানে লজ্জায় বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছি।

তার মতো আর কাউকে যেন এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন বা শিকার হতে না হয়, এজন্য বিশেষ চাহিদা সম্পূর্ণ শিশুদের সুবিধার্থে পার্কসহ সকল বিনোদনমূলক স্থানগুলোতে হুইল চেয়ার ব্যবহারের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার দাবি জানান। একই সঙ্গে চিকলী ওয়াটার পার্কে তার শিশুর সঙ্গে হওয়া ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি। এসময় সকল বিশেষ চাহিদা সম্পূর্ণ শিশুদের জন্য সরকারি ও আদালত থেকে দেওয়া নির্দেশনা বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বানও জানান।

এদিকে রংপুরের সকল বিনোদন স্থানগুলোতে শিশুদের ন্যায্য অধিকার নিশ্চিতকরণের দাবিসহ চিকলী ওয়াটার পার্কের ঘটনা তুলে ধরে জেলা প্রশাসক বরাবর গত ২৭ এপ্রিল একটি অভিযোগপত্র দিয়েছেন শিশু আল আরমান ইয়ানাতের অভিভাবক রিজা রহমান। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসন থেকে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে হুইল চেয়ার নিয়ে কিডস্ জোনে প্রবেশ করতে না দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন চিকলী ওয়াটার পার্ক কর্তৃপক্ষ। এই প্রতিবেদকের সাথে মুঠোফোন আলাপ হলে পার্কটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম আহমেদ বলেন, আমরা ওই ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। সেখানে ওইদিন যার কারণে এমনটি হয়েছে, আমার তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছি। এটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। আমরা সকল শিশুর ব্যবহার উপযোগী কিডস্ জোনের ব্যাপারে গুরুত্ব দিচ্ছি। সেখানে হুইল চেয়ার নিয়ে প্রবেশে কোনো বাধা নেই বলেও জানান তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

চিকলী ওয়াটার পার্কের কিডস্ জোনে হুইল চেয়ার নিয়ে প্রবেশে বাধা

Update Time : ০৩:১৭:১০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ মে ২০২৩

কামরুল হাসান টিটু,রংপুর: রংপুর মহানগরীর চিকলী ওয়াটার পার্কে টিকেট কাটার পরও আল আরমান ইয়ানাত নামের বিশেষ চাহিদা সম্পূর্ণ (শারীরিক প্রতিবন্ধী) দশ বছর বয়সী এক শিশুকে কিডস্ জোনে প্রবেশ করতে বাধা দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন শিশুটির অভিভাবক রিজা রহমান।

তার দাবি, চিকলি ওয়াটার পার্কের অভ্যন্তরীণ কিডস্ জোনে তার শিশুকে হুইল চেয়ার নিয়ে প্রবেশে বাধা প্রদান করে সেখানে কর্তব্যরত কর্মচারী। এঘটনায় তার কোমলমতি শিশুকে মানসিকভাবে আঘাতগ্রস্থ করার পাশাপাশি শত শত মানুষের সামনে তাকে হেয় করা হয়েছে।

বুধবার (৩ মে) দুপুরে রংপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে এ অভিযোগ তুলে ধরেন অভিভাবক রিজা রহমান। তিনি চিকলী ওয়াটার পার্কে তার বিশেষ চাহিদা সম্পূর্ণ শিশুকে ঘুরতে নিয়ে গিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছিলেন দাবি করেন।

রিজা রহমান বলেন, গত ২৬ এপ্রিল সন্ধ্যা ৬টার দিকে আমার কন্যাশিশু আল আরমান ইয়ানাতকে তার মানসিক বিকাশের জন্য চিকলী ওয়াটার পার্কে নিয়ে যাই। সেখানে দুটি প্রবেশপথে পৃথক ভাবে টিকিট কেটে ভিতরে প্রবেশের পর পার্কের অভ্যন্তরীণ কিডস্ জোনে প্রবেশের জন্য ১০০ টাকার আলাদা টিকিট কাটতে হয়। কিন্তু কিডস্ জোনের প্রবেশপথে কর্তব্যরত কর্মচারি টিকিট দেখানোর পর হুইল চেয়ারসহ আমার শিশুকে প্রবেশে বাধা দেয়। পরে কর্তৃপক্ষ থেকে জানানো হয় সেখানে হুইল চেয়ার নিয়ে প্রবেশের অনুমতি নেই।

তিনি আরও বলেন, আমি তাদের অনুরোধ করে বলেছি হুইল চেয়ার নিয়ে প্রবেশ করলে অন্য কারো কোনো সমস্যা হবে না। কিন্তু কর্তব্যরতরা আমার কথা শুনেননি। বরং শত শত মানুষের সামনে আমার কোমলমতি শিশুকে হেয় করা হয়েছে। আমার শিশু মানসিকভাবে আঘাতগ্রস্থ হয়েছে। আমি সেখানে লজ্জায় বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছি।

তার মতো আর কাউকে যেন এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন বা শিকার হতে না হয়, এজন্য বিশেষ চাহিদা সম্পূর্ণ শিশুদের সুবিধার্থে পার্কসহ সকল বিনোদনমূলক স্থানগুলোতে হুইল চেয়ার ব্যবহারের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার দাবি জানান। একই সঙ্গে চিকলী ওয়াটার পার্কে তার শিশুর সঙ্গে হওয়া ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি। এসময় সকল বিশেষ চাহিদা সম্পূর্ণ শিশুদের জন্য সরকারি ও আদালত থেকে দেওয়া নির্দেশনা বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বানও জানান।

এদিকে রংপুরের সকল বিনোদন স্থানগুলোতে শিশুদের ন্যায্য অধিকার নিশ্চিতকরণের দাবিসহ চিকলী ওয়াটার পার্কের ঘটনা তুলে ধরে জেলা প্রশাসক বরাবর গত ২৭ এপ্রিল একটি অভিযোগপত্র দিয়েছেন শিশু আল আরমান ইয়ানাতের অভিভাবক রিজা রহমান। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসন থেকে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে হুইল চেয়ার নিয়ে কিডস্ জোনে প্রবেশ করতে না দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন চিকলী ওয়াটার পার্ক কর্তৃপক্ষ। এই প্রতিবেদকের সাথে মুঠোফোন আলাপ হলে পার্কটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম আহমেদ বলেন, আমরা ওই ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। সেখানে ওইদিন যার কারণে এমনটি হয়েছে, আমার তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছি। এটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। আমরা সকল শিশুর ব্যবহার উপযোগী কিডস্ জোনের ব্যাপারে গুরুত্ব দিচ্ছি। সেখানে হুইল চেয়ার নিয়ে প্রবেশে কোনো বাধা নেই বলেও জানান তিনি।