ঢাকা ১২:২৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
লন্ডনে ‘ডিজিটাল থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ অগ্রযাত্রায় আমাদের করণীয়’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত সিলেটে বন্যায় ৭ লাখ ৭২ হাজার শিশু ক্ষতিগ্রস্ত হাঁড়িভাঙ্গা আম ও সবজি সংরক্ষণের মিঠাপুকুরে বিশেষায়িত হিমাগার স্থাপিত হবে – কৃষিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর ভারত-চীন সফরেই তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের পথ সুগম করার দাবি সৈয়দপুর হিউম্যানিটি ইন ডিস্ট্রেস (হিড) এর কোরবানি প্রোগ্রামে ১৪,৩৯,০০০ টাকার দুর্নীতির অভিযোগ নামাজ-পড়ালেখা নিয়ে শাসন করায় ফাঁস নিল কিশোরী ১ম বঙ্গবন্ধু ইন্দো-বাংলা ফুটসাল সিরিজের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত দেশে নয়টি ড্রেজিং স্টেশন তৈরি করা হচ্ছে : সিলেটে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী সিলেটে জনদুর্ভোগ অব্যাহত; পানি কোথাও কমছে কোথাও বাড়ছে তিস্তার পানি কমতে শুরু করেছে, বাড়ছে নদীভাঙন
মোস্তাফিজুর রহমান

গাইবান্ধা রেজিস্টার অফিস দুর্নীতি মুক্ত করতে যুদ্ধের প্রয়োজন

মাইদুল ইসলাম, গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি
  • Update Time : ১০:২৫:৫৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ জুন ২০২৪
  • / ২০ Time View

গাইবান্ধা সদর সাব রেজিস্টার অফিসের অনিয়ম দুর্নীতির নানান অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করে কর্তৃপক্ষের নিকট তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান গাইবান্ধা সদর উপজেলা দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোস্তামল্লিক।

বৃহস্পতিবার ০৬ জুন /২৪ দুপুরে গাইবান্ধা দলিল লেখক সমিতির কার্যালয়ে জেলার বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের নিয়ে এক প্রেস কনফারেন্সের আয়োজন করেন উক্ত সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান (মল্লিক)।

তিনি বলেন, বর্তমানে সদর সাব রেজিস্ট্রার অফিসে অনিয়ম এবং দুর্নীতির কারণে সাধারণ জনগণ সেবা বঞ্চিতসহ নানা ভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন। সরকারি নির্দেশনায় নিবন্ধিত দলিল দ্রুত সময়ের মধ্যে মালিকদের নিকট বুঝে দেয়ার কথা থাকলেও একটি কুচক্রী মহলের অপতৎপরতায় এবং অসৎ কর্মচারীর যোগসাজশে বছরের পর বছর বিলম্ব করা হচ্ছে। শুধু তাই নয় প্রত্যেক দলিল লেখকের নিকট রশিদ থাকা সত্বেও বিগত বছরগুলোর দলিল বিতরণ দেয়া হচ্ছে না। জনমনে প্রশ্ন, সরকারি বিধিমালা অনুযায়ী দলিল নিবন্ধনের যাবতীয় ফি,কর ব্যাংকে পে-অর্ডার সহ দলিল নিবন্ধন হওয়া সত্বেও দলিল গুলো বিতরণ না দেয়ার রহস্য কি! নাকি দলিলপত্রের নথিপত্র নিয়ে অন্য ইতিহাস লুকিয়ে আছে। এ দিকে দলিল লেখক সদস্যের নিবন্ধন নিয়েও রয়েছে নানা অভিযোগ। এই সকল অনিয়মের সাথে জড়িত দলিল লেখকদের নামের তালিকা প্রকাশের জোর দাবি জানান সম্মেলনে উপস্থিতিগণ।

বক্তারা আরও বলেন, গত ২১-০২-২০২১ সালের ৯৯৯৩ ও ৯৯৯৪ কবলার স্থলে হেবা ঘোষণা দলিল নাম্বার ৩৪৪৫ তারিখ ০৯-০৪-২০১৪ হয়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তদন্তের স্বার্থে এড়িয়ে যান কর্মকর্তা। আমরা আশঙ্কা করতেছি তদন্তের নামে সত্যকে আড়াল করার চেষ্টা নয় তো! এছাড়াও নিরীহ দলিল লেখকদের জোরপূর্বক স্বাক্ষর করে নেয়ার ঘটনায় মামলার ঘটনাও রয়েছে। দলিলের নম্বর পরিবর্তন, রেকর্ডের গরমিল, জাবেদা প্রদানে কালক্ষেপনসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত সদর উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার অফিস। সঠিক তদন্তের মাধ্যমে অনিয়ম দুর্নীতিবাজদের মুখোশ উন্মোচন পূর্বক শাস্তির আওতায় আনার জোর দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, গাইবান্ধা সদর দলিল লেখক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি, আব্দুস সামাদ সরকার,সহ-সভাপতি, আব্দুল কুদ্দুছ মন্ডল,সহ-সভাপতি, ইমান আলী মন্ডল,সহ-সভাপতি, সেলিম রহমান মল্লিক,দপ্তর সম্পাদক, তোজাম্মেল হক সরকার প্রমুখ।

Please Share This Post in Your Social Media

মোস্তাফিজুর রহমান

গাইবান্ধা রেজিস্টার অফিস দুর্নীতি মুক্ত করতে যুদ্ধের প্রয়োজন

Update Time : ১০:২৫:৫৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ জুন ২০২৪

গাইবান্ধা সদর সাব রেজিস্টার অফিসের অনিয়ম দুর্নীতির নানান অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করে কর্তৃপক্ষের নিকট তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান গাইবান্ধা সদর উপজেলা দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোস্তামল্লিক।

বৃহস্পতিবার ০৬ জুন /২৪ দুপুরে গাইবান্ধা দলিল লেখক সমিতির কার্যালয়ে জেলার বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের নিয়ে এক প্রেস কনফারেন্সের আয়োজন করেন উক্ত সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান (মল্লিক)।

তিনি বলেন, বর্তমানে সদর সাব রেজিস্ট্রার অফিসে অনিয়ম এবং দুর্নীতির কারণে সাধারণ জনগণ সেবা বঞ্চিতসহ নানা ভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন। সরকারি নির্দেশনায় নিবন্ধিত দলিল দ্রুত সময়ের মধ্যে মালিকদের নিকট বুঝে দেয়ার কথা থাকলেও একটি কুচক্রী মহলের অপতৎপরতায় এবং অসৎ কর্মচারীর যোগসাজশে বছরের পর বছর বিলম্ব করা হচ্ছে। শুধু তাই নয় প্রত্যেক দলিল লেখকের নিকট রশিদ থাকা সত্বেও বিগত বছরগুলোর দলিল বিতরণ দেয়া হচ্ছে না। জনমনে প্রশ্ন, সরকারি বিধিমালা অনুযায়ী দলিল নিবন্ধনের যাবতীয় ফি,কর ব্যাংকে পে-অর্ডার সহ দলিল নিবন্ধন হওয়া সত্বেও দলিল গুলো বিতরণ না দেয়ার রহস্য কি! নাকি দলিলপত্রের নথিপত্র নিয়ে অন্য ইতিহাস লুকিয়ে আছে। এ দিকে দলিল লেখক সদস্যের নিবন্ধন নিয়েও রয়েছে নানা অভিযোগ। এই সকল অনিয়মের সাথে জড়িত দলিল লেখকদের নামের তালিকা প্রকাশের জোর দাবি জানান সম্মেলনে উপস্থিতিগণ।

বক্তারা আরও বলেন, গত ২১-০২-২০২১ সালের ৯৯৯৩ ও ৯৯৯৪ কবলার স্থলে হেবা ঘোষণা দলিল নাম্বার ৩৪৪৫ তারিখ ০৯-০৪-২০১৪ হয়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তদন্তের স্বার্থে এড়িয়ে যান কর্মকর্তা। আমরা আশঙ্কা করতেছি তদন্তের নামে সত্যকে আড়াল করার চেষ্টা নয় তো! এছাড়াও নিরীহ দলিল লেখকদের জোরপূর্বক স্বাক্ষর করে নেয়ার ঘটনায় মামলার ঘটনাও রয়েছে। দলিলের নম্বর পরিবর্তন, রেকর্ডের গরমিল, জাবেদা প্রদানে কালক্ষেপনসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত সদর উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার অফিস। সঠিক তদন্তের মাধ্যমে অনিয়ম দুর্নীতিবাজদের মুখোশ উন্মোচন পূর্বক শাস্তির আওতায় আনার জোর দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, গাইবান্ধা সদর দলিল লেখক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি, আব্দুস সামাদ সরকার,সহ-সভাপতি, আব্দুল কুদ্দুছ মন্ডল,সহ-সভাপতি, ইমান আলী মন্ডল,সহ-সভাপতি, সেলিম রহমান মল্লিক,দপ্তর সম্পাদক, তোজাম্মেল হক সরকার প্রমুখ।