ঢাকা ১০:৪৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ মে ২০২৩, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
কমিটি বিলুপ্ত

কলেজছাত্রী ধর্ষণচেষ্টা, শেরপুর ছাত্রলীগ সম্পাদক শাওন বহিষ্কার

Reporter Name
  • Update Time : ০৯:৩৯:৫৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৯৭ Time View

শেরপুরে আদিবাসী এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় গ্রেপ্তার হওয়ার পর ঝিনাইগাতী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার খান শাওনকে বহিষ্কার করে কমিটি বিলুপ্তের ঘোষণা দিয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।

মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

ওই প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সংগঠন বিরোধী, শৃঙ্খলা পরিপন্থি, অপরাধমূলক এবং সংগঠনের মর্যাদা ক্ষুণ্ন হয় এমন কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে শাহরিয়ার খান শাওনকে (সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখা, শেরপুর জেলা) বাংলাদেশ ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হলো। একইসঙ্গে সাংগঠনিক নিষ্ক্রিয়তার কারণে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হল।

পুলিশ ও অন্যান্য একাধিক সূত্রে জানা গেছে, গত ২২ এপ্রিল ঈদের দিন রাত ১১টার দিকে শেরপুরের ঝিনাইগাতীর বড় গজনী গ্রামে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর গারো সম্প্রদায়ের এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন ঝিনাইগাতী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার খান শাওন। পরে ওই কলেজ ছাত্রী বাদী হয়ে ঝিনাইগাতী থানায় অভিযোগ দাখিল করেন। পুলিশ মামলাটি গ্রহণ করে সোমবার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা শাওনকে গ্রেফতার করে মঙ্গলবার আদালতে পাঠায় পুলিশ। শাওন উপজেলা সদরের শাজাহান খানের ছেলে।

ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইগাতী উপজেলার কাংশা ইউনিয়নের গজনী অবকাশ কেন্দ্র সংলগ্ন ভুক্তভোগী ওই কলেজছাত্রীর বাড়িতে। ওই ছাত্রী মহিলা কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

লিখিত অভিযোগ ও কলেজছাত্রীর স্বজনরা জানায়, ওই ছাত্রী শেরপুর সরকারি মহিলা কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। গত ২২ এপ্রিল শনিবার ঈদের দিন রাতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার খান শাওন তাদের বাড়িতে গিয়ে ছাত্রীর বাবা-মার কাছে পান খেতে চান। এসময় ওই কলেজছাত্রী বাড়ির উঠানে দাঁড়িয়ে মোবাইল চালাচ্ছিলেন। ছাত্রীর মা শাওনের জন্য পান আনতে গেলে ছাত্রলীগ নেতা শাওন উঠানে দাঁড়িয়ে থাকা কলেজছাত্রীকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে ধ্বস্তাধস্তি শুরু করে এবং বাড়ির পেছনে বনের ভেতরে মুখ চেপে ধরে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে।

এক পর্যায়ে কলেজছাত্রীর ডাকচিৎকারে তার বাবা-মা ঘর থেকে বের হয়ে এলে শাওন এ ঘটনা কাউকে জানালে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়। পরে ওই কলেজছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে উপজেলা ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যানকে জানানো হয়। বিষয়টি নিয়ে সময়ক্ষেপন হতে থাকলে উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি রবেতা ম্রংয়ের পরামর্শে সোমবার বিকেলে ঝিনাইগাতী থানায় গিয়ে শাওনের বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টার লিখিত অভিযোগ করেন ওই কলেজছাত্রী। অভিযোগের পরপরই অভিযান চালিয়ে উপজেলার বাকাকুঁড়া এলাকা থেকে শাওনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

ভুক্তভোগী কলেজছাত্রী বলেন, ওই রাতে শাওন আমার পেছন থেকে মুখ চেপে ধরে পাশের জঙ্গলে নিয়ে যায়। গলা চেপে জোর জবরদস্তি শুরু করে। এক পর্যায়ে ওড়না এবং জামা কাপড় খুলে ফেলার চেষ্টা করে। ওই অবস্থায় ওকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে চিৎকার শুরু করি। পরে মা-বাবা এবং প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে আমাকে রক্ষা করে।এ সময় তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানান।

ঝিনাইগাতী উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি রবেতা ম্রং বলেন, অন্যায় দেখলে অবশ্যই প্রতিবাদ করতে হবে। এসব মেনে নেয়ার কোনো সুযোগ নেই।

ঝিনাইগাতী উপজেলা ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান নবেশ খকশি বলেন, ঘটনার দিন রাতে কলেজছাত্রীর ডাকচিৎকারে তার বাবা-মা ঘর থেকে বের হয়ে আসে। এ সময় শাওন এ বিষয়টি কাউকে জানালে হত্যার হুমকি দেয়। আমরা এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে এই ঘটনার তিব্র নিন্দা জানাই।

অপরদিকে নিরাপত্তাজনিত কারণে গত রোববার ওই কলেজছাত্রী ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের উপজেলা শাখার সভাপতি আদিবাসী নেত্রী আদিবাসী নেত্রী রবেতা ম্রংয়ের বাড়িতে আশ্রয় নেয়।

স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে নানা ধরনের পাঁয়তারা করে আসছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

ওই প্রভাবশালী মহল ওই কলেজছাত্রীকে থানা পুলিশের কাছে যেতেও বাধা দেয়। এরপরও বাধা ও ভয়ভীতিকে উপেক্ষা করে সোমবার বিকালে তারা থানায় অভিযোগ করেন। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা শাওনের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসাসহ অবৈধভাবে পাহার কেটে পাথর উত্তোলনের অভিযোগও রয়েছে বলেও স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

এ ঘটনায় ওই কলেজছাত্রী ও তার পরিবারের লোকজন এখন চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। ওই কলেজছাত্রী ও তার পরিবার এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানিয়েছেন।

অন্যদিকে এ ঘটনা সত্য নয় বলে জানিয়েছেন শাওনের বাবা শাজাহান খান। তার দাবি ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে ফাঁসানো হয়েছে।

শেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এ্যান্ড অপস) সোহেল মাহমুদ পিপিএম বলেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার খান শাওনের বিরুদ্ধে এক কলেজছাত্রী ধর্ষণ চেষ্টার লিখিত অভিযোগ দেন। এর পরপরই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেরপুর কোর্টের পরিদর্শক কেএম শহিদুল হক জানান, আসামি শাহরিয়ার খান শাওনকে আদালতে হাজির করা হলে তাকে মঙ্গলবার বিকালে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন আদালত।

Please Share This Post in Your Social Media

কমিটি বিলুপ্ত

কলেজছাত্রী ধর্ষণচেষ্টা, শেরপুর ছাত্রলীগ সম্পাদক শাওন বহিষ্কার

Update Time : ০৯:৩৯:৫৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৩

শেরপুরে আদিবাসী এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় গ্রেপ্তার হওয়ার পর ঝিনাইগাতী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার খান শাওনকে বহিষ্কার করে কমিটি বিলুপ্তের ঘোষণা দিয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।

মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

ওই প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সংগঠন বিরোধী, শৃঙ্খলা পরিপন্থি, অপরাধমূলক এবং সংগঠনের মর্যাদা ক্ষুণ্ন হয় এমন কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে শাহরিয়ার খান শাওনকে (সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখা, শেরপুর জেলা) বাংলাদেশ ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হলো। একইসঙ্গে সাংগঠনিক নিষ্ক্রিয়তার কারণে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হল।

পুলিশ ও অন্যান্য একাধিক সূত্রে জানা গেছে, গত ২২ এপ্রিল ঈদের দিন রাত ১১টার দিকে শেরপুরের ঝিনাইগাতীর বড় গজনী গ্রামে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর গারো সম্প্রদায়ের এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন ঝিনাইগাতী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার খান শাওন। পরে ওই কলেজ ছাত্রী বাদী হয়ে ঝিনাইগাতী থানায় অভিযোগ দাখিল করেন। পুলিশ মামলাটি গ্রহণ করে সোমবার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা শাওনকে গ্রেফতার করে মঙ্গলবার আদালতে পাঠায় পুলিশ। শাওন উপজেলা সদরের শাজাহান খানের ছেলে।

ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইগাতী উপজেলার কাংশা ইউনিয়নের গজনী অবকাশ কেন্দ্র সংলগ্ন ভুক্তভোগী ওই কলেজছাত্রীর বাড়িতে। ওই ছাত্রী মহিলা কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

লিখিত অভিযোগ ও কলেজছাত্রীর স্বজনরা জানায়, ওই ছাত্রী শেরপুর সরকারি মহিলা কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। গত ২২ এপ্রিল শনিবার ঈদের দিন রাতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার খান শাওন তাদের বাড়িতে গিয়ে ছাত্রীর বাবা-মার কাছে পান খেতে চান। এসময় ওই কলেজছাত্রী বাড়ির উঠানে দাঁড়িয়ে মোবাইল চালাচ্ছিলেন। ছাত্রীর মা শাওনের জন্য পান আনতে গেলে ছাত্রলীগ নেতা শাওন উঠানে দাঁড়িয়ে থাকা কলেজছাত্রীকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে ধ্বস্তাধস্তি শুরু করে এবং বাড়ির পেছনে বনের ভেতরে মুখ চেপে ধরে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে।

এক পর্যায়ে কলেজছাত্রীর ডাকচিৎকারে তার বাবা-মা ঘর থেকে বের হয়ে এলে শাওন এ ঘটনা কাউকে জানালে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়। পরে ওই কলেজছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে উপজেলা ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যানকে জানানো হয়। বিষয়টি নিয়ে সময়ক্ষেপন হতে থাকলে উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি রবেতা ম্রংয়ের পরামর্শে সোমবার বিকেলে ঝিনাইগাতী থানায় গিয়ে শাওনের বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টার লিখিত অভিযোগ করেন ওই কলেজছাত্রী। অভিযোগের পরপরই অভিযান চালিয়ে উপজেলার বাকাকুঁড়া এলাকা থেকে শাওনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

ভুক্তভোগী কলেজছাত্রী বলেন, ওই রাতে শাওন আমার পেছন থেকে মুখ চেপে ধরে পাশের জঙ্গলে নিয়ে যায়। গলা চেপে জোর জবরদস্তি শুরু করে। এক পর্যায়ে ওড়না এবং জামা কাপড় খুলে ফেলার চেষ্টা করে। ওই অবস্থায় ওকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে চিৎকার শুরু করি। পরে মা-বাবা এবং প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে আমাকে রক্ষা করে।এ সময় তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানান।

ঝিনাইগাতী উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি রবেতা ম্রং বলেন, অন্যায় দেখলে অবশ্যই প্রতিবাদ করতে হবে। এসব মেনে নেয়ার কোনো সুযোগ নেই।

ঝিনাইগাতী উপজেলা ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান নবেশ খকশি বলেন, ঘটনার দিন রাতে কলেজছাত্রীর ডাকচিৎকারে তার বাবা-মা ঘর থেকে বের হয়ে আসে। এ সময় শাওন এ বিষয়টি কাউকে জানালে হত্যার হুমকি দেয়। আমরা এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে এই ঘটনার তিব্র নিন্দা জানাই।

অপরদিকে নিরাপত্তাজনিত কারণে গত রোববার ওই কলেজছাত্রী ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের উপজেলা শাখার সভাপতি আদিবাসী নেত্রী আদিবাসী নেত্রী রবেতা ম্রংয়ের বাড়িতে আশ্রয় নেয়।

স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে নানা ধরনের পাঁয়তারা করে আসছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

ওই প্রভাবশালী মহল ওই কলেজছাত্রীকে থানা পুলিশের কাছে যেতেও বাধা দেয়। এরপরও বাধা ও ভয়ভীতিকে উপেক্ষা করে সোমবার বিকালে তারা থানায় অভিযোগ করেন। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা শাওনের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসাসহ অবৈধভাবে পাহার কেটে পাথর উত্তোলনের অভিযোগও রয়েছে বলেও স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

এ ঘটনায় ওই কলেজছাত্রী ও তার পরিবারের লোকজন এখন চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। ওই কলেজছাত্রী ও তার পরিবার এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানিয়েছেন।

অন্যদিকে এ ঘটনা সত্য নয় বলে জানিয়েছেন শাওনের বাবা শাজাহান খান। তার দাবি ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে ফাঁসানো হয়েছে।

শেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এ্যান্ড অপস) সোহেল মাহমুদ পিপিএম বলেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার খান শাওনের বিরুদ্ধে এক কলেজছাত্রী ধর্ষণ চেষ্টার লিখিত অভিযোগ দেন। এর পরপরই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেরপুর কোর্টের পরিদর্শক কেএম শহিদুল হক জানান, আসামি শাহরিয়ার খান শাওনকে আদালতে হাজির করা হলে তাকে মঙ্গলবার বিকালে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন আদালত।