ঢাকা ০৬:১৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

আইফোন নেয়ায় সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ নাসির

নওরোজ স্পোর্টস ডেস্ক
  • Update Time : ০৭:৪৩:১৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২৪
  • / ১০০ Time View

দুর্নীতিবিরোধী নীতিমালা লঙ্ঘনের দায়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অলরাউন্ডার নাসির হোসেনকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে দুই বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আইসিসি।

মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) এক বিবৃতিতে এ কথা জানায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে নাসিরের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আইসিসি। ২০২১ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবি টি-টেন লিগে দুর্নীতির চেষ্টা ব্যাহত হয় বলে জানিয়েছিল আইসিসি। সেবার নাসিরসহ আটজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে। অভিযুক্তদের মধ্যে নাসিরই ছিলেন একমাত্র আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। আজকের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে কেবল নাসিরের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার কথা জানিয়েছে আইসিসি।

২০২১ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাতে টি-টেন লিগে অংশ নিয়েছিলেন নাসির হোসেন। মূলতঃ সেখানে খেলার সময়ই আইসিসির সন্দেহের তীর পড়ে নাসির হোসেনের ওপর।

এরপর ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তার বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগ আনে আইসিসি।

নাসিরের সব অভিযোগ স্বীকার করে নিয়েছেন বলে জানিয়েছে আইসিসি।

নাসিরের বিরুদ্ধে আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী তিনটি ধারায় অভিযোগ আনা হয়।

এসব অভিযোগের মূল কারণ হচ্ছে, আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী নিয়ম ভঙ্গ করে উপহার হিসেবে বেশি দামি আইফোন-টুয়েলভ গ্রহণ করা।

এই উপহারটি গ্রহণ করে তিনি তিনটি নিয়ম ভঙ্গ করেছেন বলে জানিয়েছে আইসিসি।

এর মধ্যে ২.৪.৩ ধারায় আছে, নাসির ৭৫০ ইউএস ডলার উপহারের রসিদ নিয়োগপ্রাপ্ত দুর্নীতিবিরোধী কর্মকর্তাকে দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন। উপহারটি একটি আইফোন ১২ বলে আইসিসির বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

২.৪.৪ ধারা অনুযায়ী, আইফোন ১২ নেওয়ার মাধ্যমের দুর্নীতির প্রস্তাব বা আমন্ত্রণের বিস্তারিত তথ্য দুর্নীতিবিরোধী কর্মকর্তাকে প্রদান করতে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি।

এছাড়া আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী ২.৪.৬ ধারাও ভেঙেছেন নাসির।

এই অভিযোগে বলা হয়েছে, সম্ভাব্য দুর্নীতির তদন্তে কোনো ধরনের গ্রহণযোগ্য কারণ ছাড়াই তিনি সহায়তা করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন বা ব্যর্থ হয়েছেন।

আর সে কারণেই এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আইসিসি।

৩২ বছর বয়সী অলরাউন্ডার নাসির হোসেন বাংলাদেশের হয়ে এখন পর্যন্ত ১১৫টি ম্যাচ খেলেছেন।
২০১১ সালে অভিষেকের পর নাসির হোসেন সর্বশেষ জাতীয় দলের হয়ে খেলেছেন ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে।

এই সময়ে ১৯টি টেস্ট, ৬৫টি ওয়ানডে এবং ৩১টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেছেন মি. হোসেন।

গত কয়েক বছর ধরে তাকে ঘরোয়া লিগেই বেশি দেখা যাচ্ছে।

সর্বশেষ গত বছরের মে মাসে বাংলাদেশে স্বীকৃত ক্রিকেট খেলেন তিনি- ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে।

গত আসরে বিপিএলের অন্যতম সেরা পারফরমার ছিলেন এই অলরাউন্ডার।

ঢাকা ডমিনেটরসের হয়ে ১২ ম্যাচ খেলে ৪৫.৭৫ গড়ে ৩৬৬ রান করার পাশাপাশি বল হাতে ১৪.৬ গড়ে নিয়েছিলেন ১৬টি উইকেট।

এখন দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ঘরোয়া লিগ-সহ কোনো ধরনের ক্রিকেটে অংশ নিতে পারবেন না নাসির হোসেন।

শাস্তির শর্ত পুরোপুরিভাবে মেনে চলতে পারলে ২০২৫ সালের ৭ই এপ্রিল আবারও তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তিনি ফিরতে পারবেন বলে জানিয়েছে আইসিসি।

Please Share This Post in Your Social Media

আইফোন নেয়ায় সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ নাসির

Update Time : ০৭:৪৩:১৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২৪

দুর্নীতিবিরোধী নীতিমালা লঙ্ঘনের দায়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অলরাউন্ডার নাসির হোসেনকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে দুই বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আইসিসি।

মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) এক বিবৃতিতে এ কথা জানায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে নাসিরের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আইসিসি। ২০২১ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবি টি-টেন লিগে দুর্নীতির চেষ্টা ব্যাহত হয় বলে জানিয়েছিল আইসিসি। সেবার নাসিরসহ আটজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে। অভিযুক্তদের মধ্যে নাসিরই ছিলেন একমাত্র আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। আজকের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে কেবল নাসিরের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার কথা জানিয়েছে আইসিসি।

২০২১ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাতে টি-টেন লিগে অংশ নিয়েছিলেন নাসির হোসেন। মূলতঃ সেখানে খেলার সময়ই আইসিসির সন্দেহের তীর পড়ে নাসির হোসেনের ওপর।

এরপর ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তার বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগ আনে আইসিসি।

নাসিরের সব অভিযোগ স্বীকার করে নিয়েছেন বলে জানিয়েছে আইসিসি।

নাসিরের বিরুদ্ধে আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী তিনটি ধারায় অভিযোগ আনা হয়।

এসব অভিযোগের মূল কারণ হচ্ছে, আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী নিয়ম ভঙ্গ করে উপহার হিসেবে বেশি দামি আইফোন-টুয়েলভ গ্রহণ করা।

এই উপহারটি গ্রহণ করে তিনি তিনটি নিয়ম ভঙ্গ করেছেন বলে জানিয়েছে আইসিসি।

এর মধ্যে ২.৪.৩ ধারায় আছে, নাসির ৭৫০ ইউএস ডলার উপহারের রসিদ নিয়োগপ্রাপ্ত দুর্নীতিবিরোধী কর্মকর্তাকে দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন। উপহারটি একটি আইফোন ১২ বলে আইসিসির বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

২.৪.৪ ধারা অনুযায়ী, আইফোন ১২ নেওয়ার মাধ্যমের দুর্নীতির প্রস্তাব বা আমন্ত্রণের বিস্তারিত তথ্য দুর্নীতিবিরোধী কর্মকর্তাকে প্রদান করতে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি।

এছাড়া আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী ২.৪.৬ ধারাও ভেঙেছেন নাসির।

এই অভিযোগে বলা হয়েছে, সম্ভাব্য দুর্নীতির তদন্তে কোনো ধরনের গ্রহণযোগ্য কারণ ছাড়াই তিনি সহায়তা করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন বা ব্যর্থ হয়েছেন।

আর সে কারণেই এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আইসিসি।

৩২ বছর বয়সী অলরাউন্ডার নাসির হোসেন বাংলাদেশের হয়ে এখন পর্যন্ত ১১৫টি ম্যাচ খেলেছেন।
২০১১ সালে অভিষেকের পর নাসির হোসেন সর্বশেষ জাতীয় দলের হয়ে খেলেছেন ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে।

এই সময়ে ১৯টি টেস্ট, ৬৫টি ওয়ানডে এবং ৩১টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেছেন মি. হোসেন।

গত কয়েক বছর ধরে তাকে ঘরোয়া লিগেই বেশি দেখা যাচ্ছে।

সর্বশেষ গত বছরের মে মাসে বাংলাদেশে স্বীকৃত ক্রিকেট খেলেন তিনি- ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে।

গত আসরে বিপিএলের অন্যতম সেরা পারফরমার ছিলেন এই অলরাউন্ডার।

ঢাকা ডমিনেটরসের হয়ে ১২ ম্যাচ খেলে ৪৫.৭৫ গড়ে ৩৬৬ রান করার পাশাপাশি বল হাতে ১৪.৬ গড়ে নিয়েছিলেন ১৬টি উইকেট।

এখন দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ঘরোয়া লিগ-সহ কোনো ধরনের ক্রিকেটে অংশ নিতে পারবেন না নাসির হোসেন।

শাস্তির শর্ত পুরোপুরিভাবে মেনে চলতে পারলে ২০২৫ সালের ৭ই এপ্রিল আবারও তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তিনি ফিরতে পারবেন বলে জানিয়েছে আইসিসি।